সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৫৫ অপরাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
লালপুর ডিগ্রি কলেজের প্রধান ফটক ও সীমানা প্রাচীর নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন   বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি নির্বাচনে সভাপতিসহ ৫ পদে বিনাপ্রতিদ্বন্দীতায় জয়ী  পেকুয়া ইউনিয়ন ভূমি অফিস যেন ঘুষের আখড়া! নোবিপ্রবিতে মেশিন ইন্টেলিজেন্স’র উপর আন্তর্জাতিক কনফারেন্স সেপ্টেম্বরে পাবিপ্রবি’কে অ্যাম্বুলেন্স উপহার দিলো ভারত সরকার! চকরিয়ায় সৌদিয়া বাসের সাথে ট্রাকের সংঘর্ষে চালক নিহত, আহত-১০ বিয়ের অনুষ্ঠানে নারীর সাজ মোবাইল গেমস বানালো বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষার্থী বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন ১৯ জানুয়ারি ভেড়ামারায় বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মাধ্যমে বিজয়ের পূর্ণতা ভেড়ামারায় সিসিটিভি ক্যামেরা চুরির ১ মাসেও চোর সনাক্ত হয়নি! ছাত্রলীগের ৭৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে হাবিপ্রবি ছাত্রলীগের স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি পবিপ্রবি রোভার স্কাউটের সমুদ্র সৈকতের পরিবেশ রক্ষা কর্মসূচি বাস্তবায়ন  শার্শায় অসহায় ও দুঃস্থ পরিবারের মাঝে কম্বল বিতরণ করেন যুবলীগ নেতা নাজমুল পানছড়ির ৫ ইউপিতে নৌকার মনোনয়ন পেলেন যারা ৬ গুণে নারী অনন্য মাইন বিস্ফোরণ দিবসে হাবিপ্রবি ছাত্রলীগের শ্রদ্ধাঞ্জলি চকরিয়ায় আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে ৩১ নারীকে সেলাই মেশিন বিতরণ জাবি রসায়ন সংসদের ভিপি গৌতম, জিএস নাজমুল নির্বাচিত পাবিপ্রবিতে ছাত্রলীগের ৭৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে বশেমুরবিপ্রবি ছাত্রলীগের পুষ্পস্তবক অর্পণ  বনপাড়া পৌরসভায় ৬৫৮ জন দুস্থ মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ রাতের অন্ধকারে ভোট কিনতে গিয়ে জনগণের হাতে ধরা, অতঃপর পুলিশে সোপর্দ। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ফেলোশীপ তালিকায় পাবিপ্রবির পাঁচ শিক্ষার্থী!

কোভিড-১৯ ও নীরব বিশ্ব

বাংলাদেশ সারাবেলা ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২০
  • ১৫২ ০০০ বার

তৃতীয় সহস্রাব্দের ২১শ শতকের ২০২০ এর দশকে বিশ্বব্যাপী মানুষের কাছে সর্বোচ্চ ভয় ও আতঙ্কের নাম করোনা ভাইরাস।বিজ্ঞানের ভাষায় যার নাম দেওয়া হয়েছে কোভিড-১৯।।করোনা ভাইরাস অত্যন্ত ক্ষুদ্র একটি ভাইরাস। করোনা ভাইরাস শব্দটি ল্যাটিন ভাষার করোন থেকে নেওয়া,যার অর্থ-‘মুকুট’। দ্বিমাত্রিক সঞ্চাচলণ ইলেকট্রনিক অণুবীক্ষণ যন্ত্রে এটিকে অনেকটা মুকুট বা সৌর করোনার মত দেখায় স্বরুপ এই নামকরণ করা হয়েছে।আকারে অত্যন্ত ক্ষুদ্র প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি বিশ্বে মহামারী রুপ ধারণ করেছে।করোনা একটি ছোঁয়াচে ভাইরাস।এর সবচেয়ে ভয়াবহ দিক হলো-এই ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি নিজের সংক্রমণের ব্যাপারে অবগত হওয়ার পূর্বেই তার দ্বারা তার পরিবার,আত্মীয়-স্বজন,পাড়া-প্রতিবেশী,বন্ধু-বান্ধব সহ সংক্রমিত হতে পারে আরো অনেক মানুষ। করোনা ভাইরাস মূলত হাঁচি, কাশির মাধ্যমে ছড়িয়ে থাকে। আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি কাশিতে যে জলীয় কণা(ড্রপলেট) বেরিয়ে আসে তার মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে করোনা ভাইরাস।তবে আক্রান্ত ব্যক্তির কোনো অঙ্গে যদি ভাইরাসের উপস্থিতি থেকে থাকে এবং সুস্থ ব্যক্তি সে অঙ্গের সংস্পর্শে এসে থাকে এবং সেই অঙ্গ মুখে,নাকে,চোখে স্পর্শ তাহলে তিনি এ ভাইরাসে আক্রান্ত হবেন। এ ভাইরাস মানুষের মুখ, নাক ও চোখ দিয়ে দেহে প্রবেশ করে শ্বাস তন্ত্রের মাধ্যমে ফুসফুসে পৌঁছায় এবং ফুসফুসে সংক্রমণ ঘটায় এবং পরবর্তীতে মৃত্যু হতে পারে।পাশাপাশি এই ভাইরাস কিডনি সহ দেহের অনেক অঙ্গ বিকল করে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে।অন্যতম ভয়ঙ্কর দিক হলো,দেহে প্রবেশ করে এ ভাইরাসের আরো বেশি সংখা বৃদ্ধি করার ক্ষমতা রয়েছে।গবেষকরা বলেছেন-দরজার হাতল, প্লাস্টিক ও লেমিনেটেড ওয়ার্কটপ ও কঠিন বস্তুর ওপর দীর্ঘ সময়(৪৮ ঘন্টা)পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে ভাইরাস।তাছাড়া কাপড়ের উপর এ ভাইরাস ৪ ঘন্টা পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে। ভাইরাস আক্রান্ত এসব জিনিস স্পর্শের পর যদি হাত পরিষ্কার না করে মুখ,চোখ,নাক স্পর্শ করেন তাহলে ব্যক্তির দেহে ভাইরাস প্রবেশ করে।মোট কথা- করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের ক্ষমতা যত বেশি,এটি প্রতিরোধ করার উপায় ততই কম।করোনা ভাইরাসের গতি যেন বেড়েই চলেছে-কমছে পৃথিবীব্যাপী মানুষের সংখ্যা।করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে ৫ দিন সময় লাগে এর লক্ষণ প্রকাশ পেতে।লক্ষণ হিসাবে প্রথমে সর্দি-কাশি,জ্বর,গলাব্যাথা এবং পরবর্তীতে শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়।বিজ্ঞানীরা বলছেন-করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা মোট আক্রান্তের ২ শতাংশ। তবুও এ ভাইরাস যেন পৃথিবীর বুকে আঁধার ঘনিয়ে এনেছে।করোনা ভাইরাসের প্রভাবে পৃথিবীর আকাশ-বাতাসে বাড়ছে ঘন উষ্ম দীর্ঘশ্বাস।বিশ্বব্যাপী ২৫ লক্ষেরও অধিক মানুষ করোনার ছোবলের শিকার।প্রাণ কেড়ে নিয়েছে ১ লক্ষ ৭৮ হাজারেরও অধিক মানুষের।সময়ের সাথে করোনা ভাইরাস এগিয়ে যাচ্ছে প্রবল গতিতে,শুধু পিছিয়ে যাচ্ছে বিশ্ব।

করোনা ভাইরাসের ভয়ঙ্কর ছোবলে পুরো বিশ্ব আজ থমকে গেছে। পৃথিবী নামক এ গ্রহটাকে দাবড়িয়ে বেড়ানো বর বড় রাষ্ট্র গুলো আজ মুখ থুবরে পড়েছে, নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র,যুক্তরাজ্য,ইতালি,স্পেন,ফ্রান্স,জার্মানি ইত্যাদি বড় বড় রাষ্ট্রগুলো আজ লাশের নগরী।কিছুই যেন করার নেই।লকডাউন-মানুষ সব ঘরে বন্দী।কেবল মাত্র উন্নত দেশগুলো নয় মধ্য আয় বা উন্নয়নশীল দেশগুলোতে করোনার প্রকোপ যেনো আরও ভয়াবহ।যেখানে বড় বড় দেশগুলো করোনা মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছে,সেখানে ছোট বা উন্নয়নশীন দেশগুলোর করোনার নির্মম ছোবলে যেন মেরুদন্ড ভেঙ্গে যাচ্ছে।করোনা বিশ্বের অর্থনীতির বুকে পা দিয়ে দাড়িয়েছে।আক্রান্ত সকল দেশসমূহের অর্থনীতিতে ব্যাপক ক্ষতিসাধন হচ্ছে।ধ্বংসের মুখে উন্নয়নশীল দেশগুলোর অর্থনীতি।করোনা যেন কাল হয়ে দাড়িয়েছে মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষদের জীবনেও।লকডাউনে সবাই খাঁচার ন্যায় ঘরে বন্দি।কাজ নেই,খাবার নেই।করোনায় আক্রান্ত ব্যতিতই তাদের জীবন যেন হুমকির মুখে।উন্নত দেশগুলো যদিও তাদের জনগণকে অর্থ-খাবার দিয়ে সহযোগিতা করছে কিন্তু বাংলাদেশ সহ অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশে এই সংকটময় সময়ে তা অত্যন্ত কষ্টসাধ্য।তবুও দেশের সরকার সর্বসাধ্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন গরিব-দিনমজুরদের মুখে খাবার তুলে দিতে কিন্তু দেশের কিছু অসৎ মানুষের জন্য যথার্থ মানুষেরা এই সাহায্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।এই সংকটময় সময়ে তারাই হয়ে দাড়িয়েছেন দেশের কাল।অন্যদিকে করোনা একাই শাষণ করছে পুরো বিশ্ব।করোনা নিয়ে মানুষের মনে কত না প্রশ্নবিদ্ধ।করোনার থাবায় মানুষ অন্ধকারে হাতরাচ্ছে।প্রকৃতি কে নিয়ে খেলা করা প্রাণীরা আজ অবরুদ্ধ -মুক্তি পেয়েছে রুদ্ধ জীবন।মাটি থেকে সৃষ্ট মানব স্বার্থের জন্য জন্য মাটিকেই দূষিত-কলঙ্কিত করেছে। পৃথিবী জুড়ে মাটি আজ ক্ষুধার্ত তাই মেতে উঠেছে লাশ ভক্ষণের নেশায়। ক্ষুদ্র একটি ভাইরাসের কাছে অসহায় বিশ্ব।করোনার কারনে বিশ্ব যে সময়টা পিছিয়ে যাচ্ছে তা কাটিয়ে উঠতে হয়তো লেগে যাবে কয়েক বছর।বিশ্বব্যাপী স্কুল-কলেজ-শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অফিস-আদালত সহ জরুরী সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ব্যতিরেকে সব বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে।কোনো শক্তি-পরাশক্তি লড়াই করার ক্ষমতা রাখে না।লড়াই করে যাচ্ছেন ডাক্তার,নার্সসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীরা।এরই মধ্যে করোনার শিকার হয়েছেন তাদের অনেকেই,মৃত্যুবরণ করেছন বেশ কয়েকজন ডাক্তার।কোনো ভ্যাকসিন-ঔষুধ-চিকিৎসা-ই করোনার বিরুদ্ধে জয়ী হতে পারছে না।করোনার বিরুদ্ধে বিশ্বের সমস্ত চিকিৎসা ব্যবস্থা অকেজো হয়ে পড়েছে।বিশ্বের বড় বড় গবেষণা কেন্দ্রে গবেষকরা দিনরাত নিরলস ও পূর্ণ উদ্দ্যমে গবেষণা করে যাচ্ছেন করোনার ঔষুদ বা ভ্যাকসিন আবিষ্কারের জন্য। বর্তমানে ঔষুধ একটাই-সতর্কতা।এর জন্য বিশ্বের করেনা আক্রান্ত প্রতিটি দেশে ঘোষণা করা হয়েছে লকডাউন।লকডাউন পরিচালনা করতে রাস্তায় রয়েছেন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।যারা মানুষের সেবায় জীবন বাজি রেখে ২৪ ঘন্টা শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন।তদেরও অনেকে শিকার হয়েছেন করোনার।তাছাড়াও সতর্কতা বৃদ্ধিতে বিভিন্ন প্রচারণা চালানো হচ্ছে।এছাড়াও বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সেচ্ছাসেবীরা মানুষের সতর্কতা বৃদ্ধিতে কাজ করে যাচ্ছেন।যে যার সাধ্যমত মানুষের পাশে দাড়িয়েছেন।করোনার কাছে পুরো বিশ্ব আজ নিস্তব্ধ। সৃষ্টিকর্তা সদয় না হওয়া পর্যন্ত হয়তো নিরবেই সব দেখে-সয়ে যাবে বিশ্ববাসী।

আমরা জেনেছি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে একমাত্র হাতিয়ার হলো সতর্কতা। বিজ্ঞানীরা বলেছেন-প্রতিদিন হ্যান্ড ওয়াশ বা স্যানিটাইজার দিয়ে ঘন ঘন হাত ভালো করে ধুতে হবে ২০ সেকেন্ড ধরে।হ্যান্ড ওয়াশ না স্যানিটাইজার না থাকলে সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে। হাত না ধুয়ে কোনো কিছু খাওয়া বা পান করা যাবে না এবং হাত দিয়ে মুখ,নাক,চোখ স্পর্শ করা যাবে না।পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে।আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসা যাবে না।জ্বর,ঠান্ডা,সর্দি-কাশি দেখা দিলে বাড়ির অন্য সদস্যদের থেকে দুরে থাকতে হবে এবং যথাসম্ভব গরম খাবার,গরম পানি-চা পান করতে হবে। গলাব্যাথা বা শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে সতর্ক হয়ে হাসপাতালে যেতে হবে যাতে অন্য কেউ সংক্রমিত না হয়।

পরিশেষে,আমরা যে যার অবস্থানে সতর্ক থাকবো।সরকারের বিধি নিষেধ মেনে চলবো।প্রার্থণা করবে- আমাদের এই পৃথিবী নিস্তব্ধতা কাটিয়ে আবার যেন চাঞ্চল্যতা ফিরে পায়।

 

 

লেখকঃ সাগর শিকদার, উদীয়মান কবি ও লেখক।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..