মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৯:১৯ পূর্বাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
বশেমুরবিপ্রবি’র বিজয় দিবস হল নিয়ে শিক্ষার্থীদের পাহাড়সম অভিযোগ পেকুয়ায় বিজয়ী প্রার্থীর সমর্থকের উপর হামলা, দোকানের মালামাল লুট পবিপ্রবিতে গবাদি পশুর কৃত্রিম প্রজনন প্রশিক্ষণ সমঝোতা চুক্তি পাহাড়ে‌র একমাত্র নারী প্রার্থীর চেয়ারম্যান পদে জয় ৬২০ দিন পর আগামীকাল খুলছে নোবিপ্রবি, উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা পটুয়াখালীর দুমকীতে রাজিবের শোক সভা দোয়া মোনাজাত। কৃষি এবং কৃষিপ্রাধান্য বিশ্বিবদ্যালয়সমূহে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত পটুয়াখালীর দুমকীতে আগুনে পুড়ে দোকান ভষ্মিভুত।  দুমকীর বোর্ড অফিস বাজারের ব্যবসায়ীদের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত।  নোবিপ্রবি ডিবেটিং সোসাইটির চতুর্দশ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত। অসহায় স্বর্গ আচার্য্যের মানবিক সহায়তার আবেদন কেমন আছে ভুল চিকিৎসায় কোমায় থাকা বশেমুরবিপ্রবির সেই শিক্ষার্থী? জবিতে টিকার দ্বিতীয় ডোজ ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে নোবিপ্রবি শাখা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা দুমকীতে উপজেলা পরিষদ মাসিক সভা একটি বাচ্চাকে বাঁচাতে অসহায় পরিবারের আকুতি গোপালগঞ্জে মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে নির্লজ্জ মিথ্যাচারের অভিযোগ কোন অপশক্তিই বিএমএসএফ’কে বিভক্ত করতে পারবেনা- সর্বোচ্চ পরিচালনা পর্ষদ মুবিপ মিটআপ ফটো কনটেস্ট ও উদ্যোক্তা কনটেস্ট পুরস্কার বিতরণী ২০২১ পেকুয়ায় ৪৫০০ পিচ ইয়াবাসহ দুই যুবক আটক  ক্লোন ক্যান্সার আক্রান্ত কুদ্দুছের আর্থিক সহযোগিতার আবেদন নোবিপ্রবিতে ভর্তিতে গুরুত্ব পাচ্ছে জিপিএ, ভর্তিচ্ছুদের ক্ষোভ চকরিয়ায় চার সন্তানের জননীকে কুপিয়ে হত্যা! বিএমএসএফ’র কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্ত; পাইলট আহবায়ক,জাফর সদস্য সচিব সিপিবি ফরিদপুর জেলা শাখার সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত

এগ্রোভেট বায়ো সলিউশনের উদ্যোগে খাদ্য হিসেবে চামড়ার ব্যবহার শীর্ষক ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত

আর.এস. মাহমুদ হাসান,বিশেষ প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই, ২০২১
  • ৮৭ ০০০ বার

বিগত কয়েক বছরে বাজারে কাঁচা চামড়া বিক্রি হচ্ছে নাম মাত্র মূল্যে, কোথাও অবিক্রিত থেকে যাচ্ছে। অসাধু ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের দরুণ চামড়ার সঠিক মূল্য পাচ্ছে না চামড়া বিক্রেতারা এবং সেই সাথে গরীব দুঃখীরাও কোরবানির চামড়ায় তাদের হক ন্যায্য টাকা বঞ্চিত হচ্ছেন। অসাধু ব্যবসায়ীদের এ সিন্ডিকেট রুখতে বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে চামড়াকে খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করা যেতে পারে।

সম্প্রতি বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি বিভাগের ছাত্ররা ও ভেট সেক্টরের কিছু পরিচিত মুখ চামড়াকে খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করেছে। তাদের নিয়ে গত ২৭ জুলাই, মঙ্গলবার রাত ৯টায় এগ্রোভেট বায়ো সলিউশন ‘চামড়ার বিকল্প ব্যবহার: খাদ্য হিসেবে চামড়া’ শীর্ষক লাইভ প্রোগাম আয়োজন করে।

যেখানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ডা. মো: নূরে আলম (ইউএলও, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর)। চামড়া খাবার ইসলামি দিক নিয়ে আলোচনা করেন মাওলানা ডা. মো: শহিদুল ইসলাম আকন্দ, এম.এম(তাফসির), সিনিয়র সিএসও (নারিশ পোল্ট্রি এন্ড হ্যাচারী লিমিটেড), হাফেজ মুফতি শরীফুল্লাহ মোবারক (দাওয়াতে হাদিস, মুফতি, মোহাদ্দিস, মোফাসসির, আদিব) শায়খুল হাদিস, জামিয়া মাদানিয়া দারুল উলুম হোসাইনিয়া, কুলিয়ারচর, কিশোরগঞ্জ এবং ডাঃ মো. জিয়া উদ্দিন ইব্রাহিম, (এরিয়া এক্সিকিউটিভ, এসিআই গোদরেজ এগ্রোভেট লিঃ)।

খাদ্য হিসেবে চামড়া প্রক্রিয়াজাত করে নিজেদের অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন মালিক মো: ওমর (এমডি, হোমল্যান্ড ডেইরি চট্টগ্রাম), বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি বিভাগের শিক্ষার্থী ইউসুফ আলী, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি বিভাগের শিক্ষার্থী সাদ রাফি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি বিভাগের শিক্ষার্থী ফরিদুল ইসলাম।

মাওলানা ডা. মো: শহিদুল ইসলাম আকন্দ তার আলোচনায় বলেন, “জবাইকৃত হালাল পশুর চামড়া খাওয়ার ক্ষেত্রে ইসলামের কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। তিনি কুরআন ও হাদিস এর আলোকে চামড়া যে হারাম নয় তার পক্ষে যুক্তি, প্রমাণ দেন। তিনি বলেন, ইসলামি শরিয়ত এর মতে কোন জিনিস হারাম হতে হলে বস্তুটি ক্ষতিকর কিনা, অপবিত্র কিনা, খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করলে হারাম কাজে উদ্বুদ্ধ করে কিনা এই তিনটি বিষয় দেখতে হবে। সূরা মায়েদা এর তিন নম্বর আয়াতের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন মৃত প্রাণী, প্রবাহিত রক্ত এবং শূকরের মাংস আল্লাহ তাআলা কুরআনে নিষেধ করেছেন। চামড়া এসব বিষয় গুলোর মধ্যে পড়ে না।

এছাড়া তিনি বলেন, হাঁস মুরগির চামড়া খাওয়া নিয়ে তো কোন কথা হয়না। মূলত গরুর চামড়া খাওয়া আমাদের দেশে প্রচলিত নয়, এই ভুল ভাঙ্গাতে হবে। তিনি ইন্দোনেশিয়া মালয়েশিয়া নাইজেরিয়া সহ বিভিন্ন মুসলিম দেশে চামড়াকে সুস্বাদু খাবার হিসেবে খাওয়ার বিষয় গুলি তার বক্তব্যে তুলে ধরেন।” ডা. মো: জিয়া উদ্দিন ইব্রাহিমও তার সাথে একমত প্রকাশ করে বলেন, চামড়া ফেলে দেওয়া, পুঁতে ফেলা অপচয়ের শামিল। সাহাবিদেরও চামড়া খাওয়ার নজির আছে তাদের আলোচনায় ফুটে উঠে।

তারপর মূল প্রবন্ধ পেশ করেন ডা. নূরে আলম। তিনি ভেটেরিনারি সায়েন্স এর আলোকে চামড়া সম্পর্কিত বিষয়াদি বিশ্লেষণ করেন। তিনিই প্রথম চামড়ার বিকল্প ব্যবহার সম্পর্কে বলেন। তিনি যোগ করেন রাষ্টীয়ভাবে তা প্রতিষ্ঠা করার জন্য এগ্রোভেট বায়ো সলিউশন কাজ করছে। ডা. নূরে আলম প্রথমে তার অনুপ্রাণিত হওয়ার গল্প নিয়ে বলেন- “চামড়া নদীতে ফেলা হচ্ছে, গত বছর ১৫০০ চামড়া পদ্মায় ভাসিয়ে দেয়া হয়, চামড়া মাটিতে পুঁতে ফেলা হচ্ছে, ভাগাড় এ ফেলা হচ্ছে। মোটামুটি একটা ভালো মানের জুতা যেখানে ৩০০০ টাকা সেখানে চামড়া কোথাও কোথাও ১০০ টাকা বা তার থেকেও কম। যদি আমরা মার্কেটে ডিমান্ড করতে পারি তাহলে সার্থক। ডিমান্ড তৈরির জন্যই আমরা খাওয়ার চিন্তা করেছি। ইব্রাহিম ভাই, মালিক ওমর ভাই, আমি চামড়া খাওয়ার জন্য প্রসেসিং করেছি গতবছর।”

তিনি চামড়া সম্পর্কে আরো বলেন- “চামড়া হচ্ছে মেরুদণ্ডী প্রাণীদের বাইরের আবরণ, ভিতরের অঙ্গগুলো সেইভ করে। আর অমেরুদণ্ডী প্রাণীদের ক্ষেত্রে এক্সোস্কেলেটন। চামড়ার কাজ হচ্ছে ভিতরের অঙ্গগুলো প্রোটেকশন, রেগুলেশন এ সাহাযা, সেনসেশন সাহায্য করাসহ ভিটামিন ডি উৎপন্ন করা। স্কিন এর পার্ট যদি দেখি তাহলে ৩ টা পার্ট আছে-এপিডার্মিস, ডার্মিস, হাইপোডার্মিস যার উপাদান ক্যারাটিন, কোলাজেন, ২টাই আমিষ। উপরের স্টার্টাম কোরনিয়াম রিমুভ করলে পরের পুরোটাই খাওয়া যায়। চামড়ার ইলাস্টিন থাকার কারণে চামড়া টানটান থাকে।কোলাজেন টানটান অবস্থা ধরে রাখে। কোলাজেন ফাইব্রাস কানেক্টিভ টিস্যুর নিয়ে গঠিত, যা মূলত প্রোটিন বা আমিষ। বাচ্চাদের চামড়ার ইলাস্টিন কম, বড়দের বেশি থাকে। বড়দের চামড়ার কোলাজেন কম থাকে। এন্টিএজিং মেডিসিন গুলোতে কোলাজেন থাকে।

চামড়ার উপাদান যদি দেখি তাহলে পানি, আমিষ ৩৩%, ফ্যাট ২%। মাংসে আমিষ প্রায় ১৬%, ব্রয়লারে ২২% মাংসের দ্বিগুণ চামড়ায়। আবার প্রসেসিং করে চামড়ার নিচে ফ্যাট ছাড়ালে তা ১% এরও নিচে চলে আছে। ৩৩% আমিষের আমরা ৩০% খাই বাকি ৩% ফেলে দেই। একটা গরু থেকে আমরা ৪০-৬০ স্কয়ার ফিট এর চামড়া পেতে পারি। চামড়ার ওজন সাধারণত পুরো ওজনের ৭.৫% হয়।” সবশেষে তিনি চামড়া প্রক্রিয়াজাতকরণ সম্পর্কে ধারণা দেন।

অনুষ্ঠান শেষ হয় আমন্ত্রিত অতিথিদের চামড়া প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং খাওয়ার অভিজ্ঞতা দিয়ে। অতিথিরা বলেন, “প্রথমে পরিবারের সবাই একটু অন্যরকম বোধ করলেও শেষে তৃপ্তি ভরে খেয়েছে, টেস্টই আলাদা”। উক্ত অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ডা. মো: মোছাব্বির হোসেন (এসিআই এনিম্যাল হেলথ)।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..