মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৯:৫৮ অপরাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
ঐতিহাসিক ২৩ জুন এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ পরানপুরকে হারিয়ে জোরগাছা প্রিমিয়ার লিগ-২০২৪ এর চ্যাম্পিয়ন শিবপুর পাবনা জেলার আটঘরিয়া উপজেলায় এ প্লাস প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনার আয়োজন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস ক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির আত্মপ্রকাশ চকরিয়ায় ৩১ বছর শিক্ষকতার পর স্কুলের সিনিয়র শিক্ষককে রাজকীয় বিদায় হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমবারের মত “বিশ্ব দুগ্ধ দিবস উদযাপিত বদরখালীতে ভুয়া ডাক্তার উম্মে হাবিবা’র ফাঁদে অসহায়রা পাবনা ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার উদ্যোগে দাখিল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কৃতি ছাত্রদের সম্বর্ধনা অনুষ্ঠিত পাবনায় পানিতে ডুবে ১২ বছরের কিশোরের মৃত্যু রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ফটোগ্রাফি সোসাইটির নতুন কমিটি গঠন  দুর্নীতি প্রতিরোধ বিষয়ক বিতর্ক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন কয়রাবাড়ী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়  পাবনায় প্রথমবারের মত আয়োজিত হতে যাচ্ছে ক্যাট শো প্রতিযোগিতা ঈশ্বরদীতে বুড়িমারী এক্সপ্রেস ট্রেন লাইনচ্যুত; তদন্ত কমিটি গঠন হায়দারপুরে এক রাতে ১৫ টি গরু চুরি জামিনে মুক্তি পেলেন সাবেক সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলাম রবীন্দ্র জয়ন্তীর কেন্দ্রীয় কর্মসূচিতে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশগ্রহণ রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ইনোভেশন প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত নোবিপ্রবি সায়েন্স ক্লাবের নেতৃত্বে দেওয়ান—শাওন ব্যাগ ভর্তি টাকা সহ সুজানগর উপজেলা নির্বাচনের চেয়ারম্যান প্রার্থী আটক কক্সবাজার জেলায় ১০ম বারের মতো শ্রেষ্ঠ ওয়ারেন্ট তামিলকারি অফিসার মহসিন, শ্রেষ্ঠ অস্ত্র উদ্ধারকারী সোলায়মান যবিপ্রবিতে দুই দিনব্যাপী শুরু হতে যাচ্ছে বৈশাখী মেলা ও লোকসংস্কৃতি উৎসব চকরিয়ার হারবাংয়ে হাতি মারার বৈদ্যুতিক ফাঁদে জড়িয়ে কৃষকের মৃত্যু শহীদ এম মনসুর আলী কলেজের প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল আর নেই আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাচন ২৯ মে, চেয়ারম্যান পদে লড়বেন ৩ জন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে দৈনিক সমকালে অপপ্রচারের বিরুদ্ধে  শিক্ষক সমিতির প্রতিবাদ

আবার উৎসবমুখর হওয়ার অপেক্ষায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

অভিজিৎ দে,খুবি প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২২১ ০০০ বার

দক্ষিণবঙ্গের জ্ঞান অর্জনের তীর্থস্থান ও দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের উচ্চশিক্ষার শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় (খুবি)। ইতিহাসের কালো অধ্যায়, একাত্তরের নির্মমতার সাক্ষ্য বহনকারী বধ্যভূমির উপর দাঁড়িয়ে আজকের খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়। সেশনজট আর ছাত্র রাজনীতিমুক্ত ক্যাম্পাসই খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়কে দেশের অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে আলাদা বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন করেছে।

ছাত্র রাজনীতির অনুপস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের নেতৃত্বদানের গুণাবলী বিকশিত না হওয়ার ভয় কাটিয়ে তুলতে বিশ্ববিদ্যালয়ে আছে ৩০টির বেশি সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। “বারো মাসে তেরো পার্বণ” আবহমান বাংলাদেশের এই প্রবাদ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে লক্ষ্য করা যায়। বছরের শুরু থেকেই বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আর উৎসবে মেতে থাকে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়।

 

প্রতিবছর পিঠা উৎসব, বাউল উৎসব, পহেলা ফাল্গুন আর পহেলা বৈশাখে দক্ষিণবঙ্গের সবথেকে বড় আয়োজন করা হয় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে। শিক্ষার্থীদের কাছে বসন্ত মানেই যেন ঈদ উৎসব। বছরের শেষ ঋতু বসন্তের প্রথম দিন ‘পহেলা ফাল্গুন-বসন্ত উৎসব’ হিসেবে পালিত হয়। এ উৎসব পরিণত হয়েছে বাঙালির নিজস্ব সার্বজনীন প্রাণের উৎসবে। বসন্তের প্রথম মুহূর্তকে ধরে রাখতে তাই ক্যাম্পাসজুড়ে শিক্ষার্থীরা মেতে ওঠে নানা উৎসব ও সাজে। আর বসন্ত বরণ উৎসবের কথা না বললেই নয়। ক্যাম্পাসজুড়ে এক মহা উৎসবের আয়োজন। শিক্ষার্থীদের সাজ-সজ্জাই জানান দেয় ক্যাম্পাসে বসন্তের আগমন। সাধারণত মেয়েদের পরনে থাকে বাসন্তী রঙের শাড়ি, হাত ভর্তি চুড়ি, মাথায় থাকে ফুলের গাজরা আর ছেলেদের পরনে থাকে পাঞ্জাবী। এক উৎসব মুখর পরিবেশে মেতে ওঠে সবাই। বসন্তকে বরণ করতে কতই না আয়োজন থাকে ক্যাম্পাসজুড়ে।

 

এছাড়া বছরের শুরুতে নবীন শিক্ষার্থীদের আগমনে ক্যাম্পাসজুড়ে উৎসবমুখর পরিবেশ দেখা যায়। তিনদিন ব্যাপী শিক্ষা সমাপনী অনুষ্ঠান ‘র‍্যাগ ডে’ ক্যাম্পাসের অনুষ্ঠানে যোগ করে ভিন্ন মাত্রা। আনুষ্ঠানিকভাবে অনুষ্ঠান তিনদিনের হলেও অন্তত এক মাস পূর্বে থেকে ক্যাম্পাসজুড়ে উৎসবমুখর পরিবেশ থাকে।
এছাড়াও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন কর্তৃক অনুষ্ঠানে ক্যাম্পাস থাকে সর্বদা মুখরিত। খেলার মাঠে ডিসিপ্লিনগুলোর মধ্যে আন্তঃডিসিপ্লিন ক্রিকেট খেলায় আয়োজন করা হয় প্রতিবছরই। খেলাপ্রিয় ক্যাম্পাসটিতে জয়ী হওয়ার পরে বিভিন্ন ডিসিপ্লিনের মধ্যে আবেগজনিত স্লোগান চোখে পড়ার মতো।

কিন্তু করোনার কারণে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হলে বন্ধ করে দেওয়া হয় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের একাডেমিক কার্যক্রম। বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের পর থেকে বিরাজমান পরিবেশ বদলে গেছে। নেই কোনো কোলাহল, নেই কোনো আনন্দ। মাসের পর মাস বন্ধ আছে হলগুলো। সেখানে নেই কোনো প্রাণের আভাস। বসন্তের আগমনে সেজে ওঠার বদলে জরাজীর্ণ আর বিষন্নতায় ভরে আছে ক্যাম্পাস। যেখানে বছরের শুরুতে নবীন শিক্ষার্থীদের আগমনে ক্যাম্পাস মুখরিত থাকে। এবং তাদেরকে বরণ করতে চলতে থাকে নানা আয়োজন। অথচ এবারে আগমন ঘটেনি কোনো নবীন শিক্ষার্থীর। করোনার ভয়াল থাবা পাল্টে দিয়েছে সব কিছু। হাদী চত্বর, ক্যাফেটেরিয়া, মুক্তমঞ্চ, অদম্য বাংলা, খানজাহান আলী হল চত্বরে দু একজনের দেখা মিললেও সেখানে নেই আগের মতো আড্ডা,কোলাহলে ভরপুর পরিবেশ।

সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খুলতে পারবে। তাই এখন রয়েছে শুধু আক্ষেপ, আর শিক্ষার্থীরা গুণছেন অপেক্ষার প্রহর।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..