বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:২০ অপরাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
কয়রাবাড়ি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত ববিতে যথাযথ মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপিত ভাষা আন্দোলন বাঙালি জাতীয়তাবাদের ভিত্তি রচনা করেছিল– রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য   চকরিয়ায় শতকোটি টাকা মূল্যের বনভূমি দখল করে আ.লীগ নেতার স্থাপনা নির্মাণ; নিরব সংশ্লিষ্ট বনবিভাগ নড়াইলের মেধাবী শিক্ষার্থী রাকিবুলের পাশে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ শাখা ছাত্রলীগ কয়রাবাড়ি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত শিক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনায় উত্তাল যবিপ্রবি, উপাচার্য কে ঘেরাও  যবিপ্রবির কিশোরগঞ্জ জেলা আসোসিয়েশন এর নেতৃত্বে রাহাত ও আবিদ যবিপ্রবি শিক্ষার্থীকে নির্যাতন, অভিযোগের তীর ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে সহায়তা তহবিল গঠন করে দরিদ্র শিক্ষার্থীদের মাঝে স্কুল ড্রেস বিতরণ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে চিত্রাংকন এবং রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন শীতবস্ত্র নিয়ে ছিন্নমুল মানুষদের পাশে পাবিপ্রবি ছাত্রলীগ গণিত ও বিজ্ঞান বিষয়ের উপর আন্তঃ উপজেলা (আটঘরিয়া) প্রতিযোগিতা মূলক মূল্যায়ন অনুষ্ঠিত কয়রাবাড়ি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারি বর্ণাঢ্য আয়োজনে যবিপ্রবিতে সরস্বতী পূজা উদযাপিত রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষ প্রেম বিতর্ক অনুষ্ঠিত  ঋতুরাজ বসন্তকে স্বাগত জানিয়েছে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় বসন্তের ছোঁয়ায় ভালবাসার আগমন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার সঙ্গে সংস্কৃতির মেলবন্ধন ঘটাতে সচেষ্ট : রবি উপাচার্য  রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তঃবিভাগ ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশীপের ফাইনাল অনুষ্ঠিত রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য হলেন পাঁচ শিক্ষক  পাবিপ্রবিতে পাস্টডিএস কর্তৃক ইংরেজি বিতর্ক প্রতিযোগিতা আয়োজিত তাত্ত্বিক পড়াশুনাকে বেগবানে স্মার্ট হকৃবি’র এএসভিএম ফ্যাকাল্টির দ্বিতীয় সফল ফিল্ড ট্রিপ সম্পন্ন হকৃবি’র এএসভিএম অনুষদের সফল ফিল্ড ট্রিপ সম্পন্ন দূর্ঘটনা এড়াতে রাস্তার গতিরোধক রঙ করল ছাত্রলীগ

এবার ডেঙ্গু নিয়ে বিস্তর গবেষণায় আবারও আলোচনায় যবিপ্রবির জিনোম সেন্টার

মেহেদী হাসান, যবিপ্রবি প্রতিনিধি :
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৮ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ১৮২ ০০০ বার

কোভিড ১৯ নিয়ে বিস্তর গবেষণার পর এবার ডেঙ্গু নিয়ে গবেষণায় আবারও আলোচনায় এসেছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনোম সেন্টার।
নতুন একটি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে গবেষণায় একের পর এক সাফল্যে যেন যবিপ্রবিকে এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছে। এই সাফল্যের পিছনে যে দুইজন মানুষের নাম বিশেষ ভাবে উল্লেখযোগ্য তারা হলেন একুশে পদক জয়ী বিশিষ্ট অণুজীববিজ্ঞানী যবিপ্রবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন এবং বাংলাদেশ একাডেমী অফ সায়েন্সেস এর সহযোগী ফেলো অধ্যাপক ড. ইকবাল কবির জাহিদ।
২০২০ সালে যখন করোনার ভয়াল থাবায় সবকিছু বন্ধ হতে বসেছিল অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে অধ্যাপক ড. ইকবাল কবির জাহিদ এবং তার গবেষণা দল নিজের জীবন বাজি রেখে কাজ করে গেছেন। শুধু তাই নয় করোনার সবচেয়ে মারাত্মক ধরণ ডেল্টা এর জিনোম সিকুয়েন্স সর্বপ্রথম যবিপ্রবি থেকেই করা হয়েছিল যা সে সময় অনেক সাড়া ফেলে দিয়েছিল। সাইবার গ্রিন নামে নতুন করোনা শনাক্তের পদ্ধতি এই যবিপ্রবির গবেষক দল থেকেই এসেছিল।

করোনার সফল ভাবে গবেষণার পর এবার জিনোম সেন্টার গবেষণা চালাচ্ছে ডেঙ্গু নিয়ে। এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাইলে জিনোম সেন্টারের সহযোগী পরিচলকের দায়িত্বে থাকা অধ্যাপক ড. ইকবাল কবির জাহিদ বলেন, আমরা করোনার মত ডেঙ্গুর ক্ষেত্রেও গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছি। প্রাথমিক ভাবে আমরা যশোর জেলার আশে পাশে কিছু জেলা ঝিনাইদহ, মাগুরা, নড়াইল এবং যশোর জেলার ডেঙ্গু আক্রান্ত মানুষের স্যাম্পল নিয়ে বিস্তর গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছি। ইতিমধ্যেই একটি গবেষণার ফলাফল জিএসআইডি তে জমা দেয়া হয়েছে এবং একটি পাবলিকেশন পিয়ার জার্নালে আছে । তিনি জানান খুব দ্রুতই সেটা প্রকাশিত হবে । ডেঙ্গুর পূর্ণাজ্ঞ জিনোম সিকুয়েন্স করে তা থেকে অনেক কিছু তথ্য গবেষক দল জানতে পারবেন এবং এই ডেঙ্গুর ধরণ এর কি ধরণের পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে সেগুলিও এর আওতায় আসবে। অধ্যাপক ড. ইকবাল কবির জাহিদ আরও বলেন সামাজিক দায় বদ্ধতা থেকে সমাজের মানুষকে আমাদের অনেক কিছু দেয়ার আছে । আমরা ইতিমধ্যেই প্রোবায়োটিক নিয়ে কাজ করেছি যা সাধারনের জন্য কল্যাণে আসছে। আমাদের এই ধরণের গবেষণা প্রতিনিয়ত অব্যাহত থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। তিনি আরও বলেন এলসিভিআর এর স্কোপাস ডাটাবেইজের তথ্য অনুযায়ী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে ১ম স্থানে অবস্থান করছে যা আমাদের জন্য নিঃসন্দেহে অতি খুশির খবর।
জিনোম সেন্টার ঘুরে দেখা যায় সেখানে রয়েছে বিশ্বমানের যন্ত্রপাতি এবং দক্ষ জনবল। জিনোম সেন্টারে কর্মরত মাসুদুর রহমান বলেন, জিনোম সেন্টার যেভাবে সেবা দিয়ে যাচ্ছে যা সত্যি অনেক আনন্দের এবং গর্বের বিষয়। আরেক শিক্ষার্থী প্রশান্ত কুমার জানান, প্রতিনিয়ত বিশ্বমানের গবেষণা চলমান আছে এখানে। শুধু তাই নয় এখান থেকে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়কে বাণিজ্যিক সুবিধাও দিয়ে থাকে জিনোম সেন্টার। সেখানে বিভিন্ন সার্ভিস এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য Sanger Sequencing, PCR, RT PCR, Genome Sequencing সহ আরও অনেক কিছু। কিছু পরীক্ষা অনেক ব্যায়বহুল হওয়ার কারণে সেগুলো বাণিজ্যিক সুবিধা দেয়া এখনো শুরু হয়নি।

এদিকে যবিপ্রবির অভূতপূর্ব সাফল্যতে যবিপ্রবি উপাচার্য বলেছেন এই বছরেই যবিপ্রবিতে আরও ৪টি অতি অত্যাধুনিক ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হবে যা বাংলাদেশে BCSIR ছাড়া কোথাও নেই। নতুন ল্যাব প্রতিষ্ঠা এবং যেভাবে যবিপ্রবি গবেষণায় এগিয়ে যাচ্ছে আশা করা যায় একদিন যবিপ্রবি সারাদেশের মধ্যে একটি নামকরা বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে এবং শিক্ষা ও গবেষণায় জাতীয় পর্যায়ে নেতৃত্ব দিবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..