শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০২:৪৪ অপরাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস ক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির আত্মপ্রকাশ চকরিয়ায় ৩১ বছর শিক্ষকতার পর স্কুলের সিনিয়র শিক্ষককে রাজকীয় বিদায় হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমবারের মত “বিশ্ব দুগ্ধ দিবস উদযাপিত বদরখালীতে ভুয়া ডাক্তার উম্মে হাবিবা’র ফাঁদে অসহায়রা পাবনা ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার উদ্যোগে দাখিল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কৃতি ছাত্রদের সম্বর্ধনা অনুষ্ঠিত পাবনায় পানিতে ডুবে ১২ বছরের কিশোরের মৃত্যু রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ফটোগ্রাফি সোসাইটির নতুন কমিটি গঠন  দুর্নীতি প্রতিরোধ বিষয়ক বিতর্ক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন কয়রাবাড়ী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়  পাবনায় প্রথমবারের মত আয়োজিত হতে যাচ্ছে ক্যাট শো প্রতিযোগিতা ঈশ্বরদীতে বুড়িমারী এক্সপ্রেস ট্রেন লাইনচ্যুত; তদন্ত কমিটি গঠন হায়দারপুরে এক রাতে ১৫ টি গরু চুরি জামিনে মুক্তি পেলেন সাবেক সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলাম রবীন্দ্র জয়ন্তীর কেন্দ্রীয় কর্মসূচিতে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশগ্রহণ রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ইনোভেশন প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত নোবিপ্রবি সায়েন্স ক্লাবের নেতৃত্বে দেওয়ান—শাওন ব্যাগ ভর্তি টাকা সহ সুজানগর উপজেলা নির্বাচনের চেয়ারম্যান প্রার্থী আটক কক্সবাজার জেলায় ১০ম বারের মতো শ্রেষ্ঠ ওয়ারেন্ট তামিলকারি অফিসার মহসিন, শ্রেষ্ঠ অস্ত্র উদ্ধারকারী সোলায়মান যবিপ্রবিতে দুই দিনব্যাপী শুরু হতে যাচ্ছে বৈশাখী মেলা ও লোকসংস্কৃতি উৎসব চকরিয়ার হারবাংয়ে হাতি মারার বৈদ্যুতিক ফাঁদে জড়িয়ে কৃষকের মৃত্যু শহীদ এম মনসুর আলী কলেজের প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল আর নেই আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাচন ২৯ মে, চেয়ারম্যান পদে লড়বেন ৩ জন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে দৈনিক সমকালে অপপ্রচারের বিরুদ্ধে  শিক্ষক সমিতির প্রতিবাদ বর্ণাঢ্য আয়োজনে হকৃবিতে প্রথম ‘বিশ্ব ভেটেরিনারি দিবস-২০২৪ উদযাপিত চকরিয়ায় জেলের ছদ্মবেশে অভিযান; ১২ লাখ ৫০ হাজার পিস ইয়াবা জব্দ আটঘরিয়ায় ৩ কৃষকের বাড়িতে অগ্নিকাণ্ডে ১৫ লক্ষাধিক টাকার মালামাল ভস্মীভূত

চকরিয়ার হারবাংয়ে বনভূমি দখল করে বসতবাড়ি নির্মাণের হিড়িক

মোঃ কামাল উদ্দিন, কক্সবাজার প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৩০ জুলাই, ২০২৩
  • ১৪৪ ০০০ বার

চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের অধীনে চুনতি রেঞ্জের আওতাধীন হারবাং বনবিটের বনভূমি দখলের চলছে মহোৎসব। প্রতিনিয়ত বনভূমি দখল করে ও পাহাড় কেটে তৈরি করা হচ্ছে নতুন নতুন স্থাপনা। বনভূমি দখল হয়ে যাওয়ার কারণে ধ্বংস হচ্ছে প্রাকৃতিক পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য। আবাসভূমি হারাচ্ছে নিরীহ বন্যপ্রাণীগুলো। এক প্রকার হারবাং বনবিটের অধীনে বনবিভাগের জায়গাগুলো দখল হয়ে যাওয়ায় বনভূমি শূন্য হওয়ার পথে। সরেজমিন সাংবাদিকরা বনভূমি দখল হওয়ার নেপথ্যে কারা জড়িত রয়েছে এবিষয়ে অনুসন্ধানে নামলে উঠে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য। হারবাং ইউনিয়নের গয়ালমারা ৮নং ওয়ার্ডের ভেটকারঝিরি নামক স্থানে মোঃ ইউসুফ নামের এক ব্যক্তি বনভূমির জায়গার উপর নির্মাণ করে যাচ্ছে ইটের স্থায়ী স্থাপনা। এসময় সাংবাদিকরা মোঃ ইউসুফ ও তার স্ত্রীর কাছে বনভূমির জায়গায় বসতবাড়ি নির্মাণের বিষয়ে জানতে চাইলে তারা জানান, বনবিভাগের সুফল প্রকল্পের সুবিধাভোগী সদস্য মোজাম্মেল নামের এক ব্যক্তিকে সাথে নিয়ে সরাসরি বনবিটে হাজির হয়ে হারবাং বনবিট কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করতে দিতে হয়েছে ৩০ হাজার টাকা। এরপরই তারা বনবিভাগের জমিতে এ বসতবাড়ি নির্মাণ করেছেন। তবে, বসতবাড়ি নির্মাণ শেষ হওয়ার আগে আরো কিছু টাকা বনবিভাগের জমিতে বাড়ি নির্মাণ বাবদ দেওয়ার কথা আছে বলে জানান তারা। এছাড়াও একই ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের কোরবানিয়াঘোনা এমপি জাফর আলম প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিছনে বনবিভাগের জায়গার উপর ইট দিয়ে স্থায়ী বসতবাড়ি নির্মাণ করছেন মোঃ বাবুল নামের এক ব্যক্তি। তার সাথে কথা বলার পর উঠে আসে ভিন্ন তথ্য। বনভুমিতে বাড়ি নির্মাণের জন্য চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার কথিত এক সাংবাদিকের মাধ্যমে হারবাংয়ের বনবিট কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করতে মোঃ বাবুলকে গুণতে হয়েছে ৫০হাজার টাকা। দাবিকৃত ৫০ হাজার টাকা দেওয়ার পরই নিশ্চিন্তে বনবিভাগের জমিতে ইটের স্থায়ী বসতবাড়ি নির্মাণ করছেন বলে জানান তিনি। এসময় তিনি আরো জানান, তাদের দাবিকৃত ৫০ হাজার টাকা বাড়ি নির্মাণের প্রথমদিকে দিতে না পারায় দুইবার ভেঙে দিয়েছিলো বনবিভাগ। এরপর দাবিকৃত টাকা তাদের দিলে বাড়ি নির্মাণে আর কোন বাঁধা আসেনি। অন্যদিকে, ৮নং ওয়ার্ডের সামাজিকপাড়া নতুন মসজিদ এলাকায় গেলে দেখা যায় বনবিভাগের বিশাল পাহাড় কেটে ইটের স্থায়ী বসতবাড়ি নির্মাণ করছেন আক্তার আহমেদ (প্রকাশ মিড়া আক্তার) নামের এক ব্যক্তি। সমূহস্থানে সরেজমিন গিয়ে আক্তার আহমেদের সাথে কথা বলে জানা যায়, পাহাড় কেটে বাড়ি নির্মাণ করতে স্থানীয় এক দালালের মাধ্যমে বিট কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করতে দিতে হয়েছে ৬০হাজার টাকা। এসব টাকা সেই দালালের মাধ্যমে বিট অফিসে পৌঁছে গেলে কোন বাঁধার সম্মুখীন হতে হয়নি বলে জানান তিনি। এদিকে, এসব তথ্যের ভিত্তিতে চুনতি রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তার আমলে বনবিভাগের জমিতে বাড়ি নির্মাণ করতে কাউকে অনুমতি দেয়া হয়নি বা বনবিভাগের জমিতে বাড়ি নির্মাণ বাবদ কারো কাছ থেকে ১টা টাকাও নেওয়া হয়নি। কেউ যদি এভাবে বলে থাকে সেটা সম্পূর্ণ তাদের ব্যক্তিগত ব্যাপার। এব্যাপারে আমার কিছু জানা নেই। তবে, বনবিভাগের জমি দখল করে যেখানেই বাড়ি নির্মাণের খবর পাচ্ছি সেখানেই অভিযান চালানো হচ্ছে এবং তাদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হচ্ছে। অতিশীঘ্রই আপনাদের দেওয়া তথ্যমতে সমূহস্থানের নির্মাণকৃত বসতবাড়িগুলোতে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হবে। অপরদিকে, এবিষয়ে জানতে চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) আব্দুল্লাহ আল মামুনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বনবিভাগের পাহাড় কর্তন বা বনভূমিতে স্থায়ী বা অস্থায়ী বসতি নির্মাণ সম্পূর্ণ অবৈধভাবে এবং আইনগত অপরাধ। এবিষয়ে চুনতি রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তার সাথে কথা বলে পাহাড় কর্তনকারী ও বনবিভাগের জমিতে বসতবাড়ি নির্মাণকারীদের বিরুদ্ধে বন আইনে ব্যবস্থা নিতে বলা হবে।

উল্লেখ্য: বনবিভাগের পাহাড় কেটে ও বনবিভাগের জমিতে বসতবাড়ি নির্মাণ করা ব্যক্তিদের বক্তব্যের সকল ভিডিও রেকর্ড প্রতিবেদকের কাছে সংরক্ষিত আছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..