রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৪১ পূর্বাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
পাবলিক ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অব ঝিনাইগাতী’র সভাপতি নাজমুল, সম্পাদক জিম পাথেয় এর সভাপতি মামুন, সম্পাদক শারীফুল ইসলাম “পহেলা বৈশাখ ও সাম্প্রদায়িক বিতর্ক “ ঈশ্বরদীর নওদাপাড়ায় ৪র্থ বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ঈদের শুভেচ্ছা জানালো রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি সহস্রাধিক সাইটেশনের মাইলফলক স্পর্শ করলেন রবীন্দ্র উপাচার্য  ইদের পরেই বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটি হবে: শেখ ইনান প্রথম বর্ষে ভর্তিপরীক্ষা বিষয়ে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত মৌলবাদ জঙ্গিবাদ মূলোৎপাটন ও বুয়েটে ছাত্র রাজনীতির দাবিতে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের মানববন্ধন নোবিপ্রবির সঙ্গে যুক্তরাজ্যের নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর যবিপ্রবিতে পিএইচডি সেমিনার ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে সুশাসনের নিমিত্ত অংশীজনের সভা অনুষ্ঠিত  যশোরে সমরাস্ত্র প্রদর্শনীতে যবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা সবুজ বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে তরুণদের ‘মিশন গ্রিন বাংলাদেশ’ ডিআইইউ’র ১০ শিক্ষার্থী বহিষ্কারের প্রতিবাদে নোবিপ্রবিতে মানববন্ধন  স্বাধীনতা দিবসে ইবির খালেদা জিয়া হলে আলোচনা সভা ও দোয়া   রবির কুড়িগ্রাম জেলা শিক্ষার্থী কল্যাণ সমিতির দায়িত্বে জ্বীম-মনির নানা আনুষ্ঠানিকতায় যবিপ্রবিতে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপিত রবির বগুড়া জেলা শিক্ষার্থী কল্যাণ সমিতির দায়িত্বে সোয়েব-সমুদ্র রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপন  স্বাধীনতাকে নিয়ে ববি শিক্ষার্থীদের ভাবনা রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগার্ডকে স্থানীয় যুবকের মারধর  ববিতে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত চকরিয়ার মালুমঘাটে ইফতারের পূর্বে যুবককে তুলে নিয়ে ছুরিকাঘাতে হত্যা যবিপ্রবির তীর্থ কর্তৃক আয়োজিত ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

নাব্যতা সংকটের কারনে ব্যাহত হচ্ছে পটুয়াখালী- ঢাকা লঞ্চ চলাচল

সিফাত হোসেন, পটুয়াখালী প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ২১৪ ০০০ বার

পটুয়াখালীর অনেকেই ঢাকা থেকে পটুয়াখালীর আসার জন্য নদী পথকে বেছে নেয়। পটুয়াখালীর দক্ষিণ অঞ্চলে শীত মৌসুমে লাউকাঠি, লোহালিয়া, কারখানা ও কবাই নদ-নদীতে ডুবোচরে প্রায়ই আটকে পড়ছে লঞ্চ। আরও কয়েকটি স্থানে ডুবোচর আছে।

নদীতে অন্তত ২ মিটার গভীরতা থাকলে নৌযান চলাচল করতে পারে। কিন্তু ভাটার সময় অনেক স্থানে দেড় মিটার গভীরতা পাওয়া যায়।

শীত মৌসুমের শুরুতে পটুয়াখালীর নদ-নদীর পানি কমে যাওয়ায় নাব্যতা-সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে। নাব্যতা ফেরাতে প্রতিবছর নদীতে খননকাজ চললেও তা তেমন কাজে আসছে না।

এ অবস্থায় ঢাকা-পটুয়াখালী নৌপথে চলাচলকারী যাত্রীবাহী লঞ্চগুলো ভাটার সময় প্রতিদিনই ডুবোচরে আটকে পড়ছে। ব্যাহত হচ্ছে চলাচল।

পটুয়াখালী-ঢাকা নৌপথে মোট ১০টি দ্বিতল লঞ্চ চলাচল করে। এ ছাড়া গলাচিপা থেকে পটুয়াখালী হয়ে এই পথে ঢাকায় যাতায়াত করছে ৪টি দোতলা লঞ্চ।

এই লঞ্চগুলো ঢাকার উদ্দেশে পটুয়াখালী থেকে ছেড়ে যাওয়ার পরপরই পটুয়াখালী নদীবন্দর প্রবেশমুখে লাউকাঠি নদীর ডুবোচরে লঞ্চগুলো বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে। এরপর লোহালিয়া, কারখানা, কবাই নদ-নদীর ডুবোচরে প্রায়ই আটকে পড়ছে লঞ্চগুলো।

এ সময় গন্তব্যে পৌঁছাতে জোয়ারের জন্য অপেক্ষা করতে হয় লঞ্চগুলোকে। নৌপথের নাব্যতা সংকটের কথা উল্লেখ করে লঞ্চের মাস্টাররা যৌথভাবে নদীবন্দরে লিখিত আবেদনে বলেছেন, যেকোনো সময়ে এই নৌপথ ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ার আশঙ্কা

রয়েছে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) সূত্রে জানা গেছে, পটুয়াখালী নদীবন্দর থেকে নদী খননের জন্য বিআইডব্লিউটিএ ঢাকা ড্রেজিং বিভাগের তিনটি খননযন্ত্র নদী খননের কাজ শুরু করেছে।

নদীর নাব্যতা ফেরাতে ডি-পূর্ণভার নামের ড্রেজারটি ৯ অক্টোবর থেকে আফালকাঠি-সোনাকান্দা এলাকায় কবাই নদে খননকাজ শুরু করেছে।

আরডিএল-১ ড্রেজারটি ২০ অক্টোবর থেকে কবারই-সোনাকান্দা এলাকায় খননকাজ করছে। এ ছাড়া ১৩ অক্টোবর থেকে ডি-১৩৮ ড্রেজারটি লোহালিয়া নদীতে খনন শুরু করেছে।

এদিকে নদী খনন করা হলেও এখনো নাব্যতা ফেরেনি। ১৩ নভেম্বর রাতে পটুয়াখালী থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া এআর খান-১ লঞ্চটি শত শত যাত্রী নিয়ে আফালকাঠি এলাকার কারখানা নদে ডুবোচরে আটকে পড়ে।

এর পরদিন ১৪ নভেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে নাব্যতা-সংকটের কারণে একই স্থানে তিনটি দোতলা লঞ্চ সহস্রাধিক যাত্রী নিয়ে ডুবোচরে আটকে পড়ে।

লঞ্চগুলো হচ্ছে সুন্দরবন-১৪, রয়েল ক্রুজ-১ ও জামাল-৫। প্রায় তিন ঘণ্টা পর জোয়ারের সময় নদীর পানি বাড়লে লঞ্চগুলো নির্দিষ্ট গন্তব্যে ছেড়ে যায়।

গলাচিপা টু ঢাকা এম ভি পূবালী লঞ্চের সিনিয়র মাষ্টার মোঃ জসিমউদদীন জানান, দীর্ঘদিন ধরে নদী খনন চললেও নদীর নাব্যতা ফিরে আসেনি।

নদীতে ২ মিটার গভীরতা থাকলেও নৌযান চলাচল করতে পারে। কিন্তু ভাটার সময় অনেক স্থানে দেড় মিটার গভীরতা পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে নদীবন্দরের সহকারী পরিচালক খাজা সাদিকুর রহমান বলেন, সকল নৌ-জান লঞ্চের মাষ্টার লিখিত ভাবে আমাদের জানিয়েছেন।

আমরা বিষয়টি আমলে নিয়ে বিআইডব্লিউটিএ’র ড্রেজিং বিভাগের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে লিখিত ভাবে জানিয়েছি। আশা করছি নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে দ্রুত’ই এর সমাধান হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..