বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১০:৫৩ অপরাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
ছিনতাই ও মারধরের শিকার পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ঢাবি সিনেট নির্বাচনে বিজয়ী হলেন মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মাসুদুর রহমান চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালীতে প্রতিপক্ষের হামলায় প্রবাসী যুবক ও নারীসহ গুরতর আহত ২ প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তি করায় পাবিপ্রবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ সেশনের শিক্ষার্থীদের নবীন বরণ অনুষ্ঠিত ভাঙ্গায় শিক্ষক আজগর আলীর শোক সভা অনুষ্ঠিত ডিআইইউতে গবেষণা বিষয়ক সেমিনার বড়াইগ্রামে ট্রাক মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালকসহ দুইজন নিহত কাঁচাবাজারের সরকারি জমি দখল উপজেলা প্রশাসনের, বিপাকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা শার্শার বাগআঁচড়ায় সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগ। আহত-১ দুমকীতে গভীর রাতে হাত পা বেঁধে ফিল্মি স্টাইলে ডাকাতি! জিপিএ পদ্ধতি বাতিলের দাবি শিক্ষার্থীদের থট অফ রমাদানের ব্যতিক্রম আয়োজন ” বিবেক দংশন ” – নাজমুল হুদা শিথিল। শার্শার বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল গনি’র মুত্যু, দাফন সম্পন্ন। কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা দিলো কাকিনা স্টুডেন্টস ফোরাম চকরিয়ায় সড়ক দূর্ঘটনায় স্কুল শিক্ষিকার মৃত্যু নাটোরে চাঞ্চল্যকর কৃষক হত্যার খুনীদের ফাঁসির দাবি বড়াইগ্রাম-বনপাড়া পৃথক উপজেলা গঠণের লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা মেহেদীর জন্য সাহায্যের হাত বাড়ান দুমকীতে ছাত্রলীগের উদ্যোগে গরিব অসহায় মানুষের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ। ভেড়ামারায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ হস্তান্তর পাবিপ্রবিতে বঙ্গবন্ধু হল ছাত্রলীগের সেক্রেটারি মেহেদী হাসান রেইনের ইফতার বিতরণ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নিয়ে চিকিৎসা বোর্ড গঠন করেও বাঁচানো গেলো না সিংহী নদীকে নাটোরের মেয়ে সুমাইয়া সহকারী জজ নিয়োগ পরীক্ষায় দেশ সেরা

বঙ্গবন্ধু- রাজনৈতিক পর্যটনের অবিচ্ছেদ্য অংশ

ফিচার ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৫ জুন, ২০২০
  • ১৯৪ ০০০ বার

রাজনৈতিক পর্যটনের কথা শুনে অবাক হচ্ছেন? আমরা কোন না কোন ভাবে রাজনৈতিক পর্যটনের সাথে সম্পৃক্ত। মানুষ স্বভাবতই রাজনৈতিক জীব।রাজনৈতিক পর্যটন হচ্ছে পর্যটন সেই শাখা যখন কোন ব্যক্তি রাজনৈতিক কাজের জন্য এক দেশ থেকে অন্য দেশ বা এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রন্তে ভ্রমণ করে বিভিন্ন রাজনৈতিক সভা- সম্মেলন,বা কাজে অংশ গ্রহণের জন্য। রাজনৈতিক সম্মেলন,সভা এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে স্বাভাবিক পরিবেশে বাইরে জায়গাগুলিতে ভ্রমণ করা এবং সেখানে থাকা ব্যক্তিদের ক্রিয়া-কলাপ অন্তর্ভুক্ত থাকে।

রাজনৈতিক পর্যটন আন্তর্জাতিক ভ্রমণের একটি উল্লেখযোগ্য ক্ষেত্র হিসেবে উঠে আসছে।প্রতিবছর বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধানগণ রাজনৈতিক সভা- সম্মেলনে যোগদান করে থাকেন। আমাদের দেশে রাজনীতির সাথে কিছু গুরুত্বপূর্ণ স্থান রাজনৈতিক পর্যটনের কেন্দ্র হিসেবে বিবেচিত হতে পারে যেমন- রেসকোর্সে ময়দান বা সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, মেহেরপুরের বৈদ্যনাথ তলা বা মুজিবনগর, শহীদ মিনার,জাতীয় স্মৃতিসৌধ, বঙ্গবন্ধুর ধানমন্ডি ৩২ নাম্বার বাড়ি ও বঙ্গবন্ধু জন্মস্থান ও সমাধিস্থান ইত্যাদি।

৭ই মার্চে রেসকোর্সে ময়দানে ঐতিহাসিক ভাষণকে বলা হয় বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ।যে সনদের মহাকবি ছিলেন শেখ মুজিবুর রহমান। এই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রতি বছর কয়েক লাখ মানুষ ঘুরতে আসেন মাহান নেতা যে জায়গায় দাঁড়িয়ে বাঙালি জাতির মুক্তির ডাক দিয়েছিলেন সেটি দেখার জন্য। মেহেরপুরে ঘুরতে যান মুজিবনগর সরকার শপথ গ্রহণের স্থনটি দেখার জন্য।এছাড়াও শহীদ মিনার,জাতীয় স্মৃতিসৌধ সাথে জড়িয়ে আছে আমাদের স্বাধীনতার রাজনৈতিক ইতিহাস।

শেখ মুজিবুর রহমান সংক্ষিপ্তাকারে শেখ মুজিব একজন রাজনীতিবিদ এবং স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, যিনি বাংলাদেশের গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া নামক গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।তাকে ‘বাঙালি জাতির জনক’ বলা হয়। তিনি বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি এবং পরে ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল থেকে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট তাঁর হত্যার আগ পর্যন্ত বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন । তিনি বাংলাদেশের জনগণের কাছে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধিতে খ্যাত। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতার পেছনে ইতিহাসের মহানায়ক হিসেবে বিবেচিত।বঙ্গবন্ধু তাঁর সহজাত দক্ষতা সম্পন্ন নেতৃত্বে সাথে বলিষ্ঠ বাগ্মী, গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র এবং জাতীয়বাদীতার এক মুহূর্ত রাজনৈতিক নেতা ছিলেন। এই সকল অনন্য ও বিরল গুণাবলীর জন্য তিনি সকলের মনে জায়গা করে নেন।
তাঁর কৃতিত্বের জন্য শুধু বাংলাদেশের মানুষই নয়, সারা বিশ্বের মানুষ তাকে ভালবাসে। বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানাতে প্রতিবছর লক্ষ লক্ষ দেশি-বিদেশি মানুষ গোপালগঞ্জ জেলার টুংগীপাড়ায় অবস্থিত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে ঘুরতে আসেন। বাংলাদেশের স্মরণীয় দিন গুলো যেমন ১৭ ই মার্চ (বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন বা বাংলাদেশের জাতীয় শিশু দিবস), ১৫ ই আগস্ট (বাংলাদেশের জাতীয় শোক দিবস) এ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং অন্যান্য রাজনৈতিক নেতা ও নেতৃবৃন্দ বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পস্তবক নিবেদন করেন।এছাড়াও দেশের কাজে নিয়োজিত হওয়ার পূর্বে আওয়ামী লীগের সকল নেতৃবৃন্দ বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পস্তবক নিবেদন করে শ্রদ্ধা প্রদর্শন করেন। বিদেশের রাজনৈতিক নেতারা যখনই বাংলাদেশে আসেন, তারা অবশ্যই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিস্থল দর্শন করেন।

বঙ্গবন্ধুর সমাধি স্থলে প্রতিবছর এত দর্শনার্থী ভিড় জমানোর কারনে এটিকে কেন্দ্র করে এর আশেপাশে অনেক হোটেল, রিসোর্ট এবং রেস্টুরেন্ট গড়ে উঠেছে। তাই গোপালগঞ্জ জেলায় ‘বঙ্গবন্ধু সমাধি ‘কেন্দ্র করে রাজনৈতিক পর্যটন প্রতিষ্ঠার দুর্দান্ত সুযোগ রয়েছে। আমরা যদি গোপালগঞ্জ জেলা টিকে দৃঢ়ভাবে রাজনৈতিক পর্যটনের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ হিসেবে দেখতে চাই, তবে আমরা গোপালগঞ্জের সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোর একটি প্যাকেজ তৈরি করতে পারি যেখানে বঙ্গবন্ধু তার জীবনের গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্ত গুলি কাটিয়েছেন। এর ফলে যেমন মানুষ তাদের প্রিয় নেতার জন্মস্থান, শৈশবকাল, তাঁর রাজনৈতিক জীবনের হাতে খড়ি ইত্যাদি বিশদভাবে জানতে পারবে তেমনি গোপালগঞ্জ জেলা ও বিশ্বমঞ্চে পর্যটনের ক্ষেত্রে প্রসিদ্ধি লাভ করবে। গোপালগঞ্জ জেলাতে রাজনৈতিক পর্যটন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে স্থানীয় লোকদের পর্যটন সংশ্লিষ্ট কাজের সাথে সম্পৃক্ত করে তাদের জীবন যাত্রার মান উন্নয়নে ভূমিকা রাখা সম্ভব। এছাড়াও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে সম্পর্কিত রাজনৈতিক স্থান ও স্থাপনাগুলকে সংরক্ষণের মাধ্যমে ভ্রমণ উপযোগী করতে পারলে রাজনৈতিক পর্যটনের মডেল হিসেবে গড়ে উঠবে। রাজনৈতিক পর্যটনের মডেল প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হলে নতুন প্রজন্ম বঙ্গবন্ধুর শৈশব থেকে শুরু করে রাজনৈতিক জীবনের প্রতিটি ঘটনার জীবন্ত প্রতিফলন দেখতে পারবে।

 

লেখিকাঃ সাদিয়া শারমিন
শিক্ষার্থী, ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, গোপালগঞ্জ

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..