মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৬:৪৮ পূর্বাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
পাবনা ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার উদ্যোগে দাখিল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কৃতি ছাত্রদের সম্বর্ধনা অনুষ্ঠিত পাবনায় পানিতে ডুবে ১২ বছরের কিশোরের মৃত্যু রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ফটোগ্রাফি সোসাইটির নতুন কমিটি গঠন  দুর্নীতি প্রতিরোধ বিষয়ক বিতর্ক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন কয়রাবাড়ী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়  পাবনায় প্রথমবারের মত আয়োজিত হতে যাচ্ছে ক্যাট শো প্রতিযোগিতা ঈশ্বরদীতে বুড়িমারী এক্সপ্রেস ট্রেন লাইনচ্যুত; তদন্ত কমিটি গঠন হায়দারপুরে এক রাতে ১৫ টি গরু চুরি জামিনে মুক্তি পেলেন সাবেক সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলাম রবীন্দ্র জয়ন্তীর কেন্দ্রীয় কর্মসূচিতে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশগ্রহণ রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ইনোভেশন প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত নোবিপ্রবি সায়েন্স ক্লাবের নেতৃত্বে দেওয়ান—শাওন ব্যাগ ভর্তি টাকা সহ সুজানগর উপজেলা নির্বাচনের চেয়ারম্যান প্রার্থী আটক কক্সবাজার জেলায় ১০ম বারের মতো শ্রেষ্ঠ ওয়ারেন্ট তামিলকারি অফিসার মহসিন, শ্রেষ্ঠ অস্ত্র উদ্ধারকারী সোলায়মান যবিপ্রবিতে দুই দিনব্যাপী শুরু হতে যাচ্ছে বৈশাখী মেলা ও লোকসংস্কৃতি উৎসব চকরিয়ার হারবাংয়ে হাতি মারার বৈদ্যুতিক ফাঁদে জড়িয়ে কৃষকের মৃত্যু শহীদ এম মনসুর আলী কলেজের প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল আর নেই আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাচন ২৯ মে, চেয়ারম্যান পদে লড়বেন ৩ জন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে দৈনিক সমকালে অপপ্রচারের বিরুদ্ধে  শিক্ষক সমিতির প্রতিবাদ বর্ণাঢ্য আয়োজনে হকৃবিতে প্রথম ‘বিশ্ব ভেটেরিনারি দিবস-২০২৪ উদযাপিত চকরিয়ায় জেলের ছদ্মবেশে অভিযান; ১২ লাখ ৫০ হাজার পিস ইয়াবা জব্দ আটঘরিয়ায় ৩ কৃষকের বাড়িতে অগ্নিকাণ্ডে ১৫ লক্ষাধিক টাকার মালামাল ভস্মীভূত বাউরেসের কৃষি সাংবাদিকতা পুরস্কার পেলেন আবুল বাশার মিরাজ গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা আয়োজনে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বয় সভা আটঘরিয়ার একাডেমিক সুপারভাইজারের বিদায় সংবর্ধনা চকরিয়ায় মহাসড়কে ব্যারিকেড দিয়ে গণ-ডাকাতি, গুলি বিনিময়, পুলিশসহ গুলিবিদ্ধ ২

ভারতে হাতি হত্যা, পশুপ্রেম আর আমেরিকার বর্ণবাদ!

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৫ জুন, ২০২০
  • ৬৭০ ০০০ বার

বর্তমান সময়ে সোস্যাল মিডিয়ায় সবচেয়ে ভাইরাল বিষয় হলো কেরালার হাতি মেরে ফেলা আর আমেরিকায় রেসিজম নিয়ে বা বৈষম্য নিয়ে। আমিও একটু মেতে আছি। কিন্তু একটু ভিন্নভাবে। কিভাবে সেটা? আসুন আমরা সেটাই বোঝার চেষ্টা করি।

প্রথমে আসি রেসিজম বা বৈষম্য নিয়ে। কিছুদিন আগে আমেরিকান পুলিশ অফিসার কর্তৃক একজন ব্লাকিশ লোক নিহত হন। তাই নিয়ে উত্তাল সারাবিশ্ব। সবাই আমরা সাম্যতা চাই। চাই থাকবে না কোনো বৈষম্য। সবাই একটা সুন্দর পৃথিবী চাই। যেখানে সাদা কালো, হিন্দু মুসলিম সবাই একসাথে থাকবো। কিন্তু সেটা কি আদৌ সম্ভব? এটা সম্ভব না। কারণ আমরা কেউ ই সাম্যতা মানি না। আমরাই সর্বপ্রথম বৈষম্য টেনে আনি। আমরাই সবচেয়ে বেশি রেসিজম করি।

সেটা কিভাবে? অনেকেরই একটা প্রশ্ন থাকবে। আর প্রশ্ন আসাটা স্বাভাবিক। আমি আমাদের ইয়াং জেনারেশনের একটা উদাহরণ টেনেই বলি। একটা ছেলে কখনোই একটা কালো বা শ্যামলা চেহারার মেয়েকে পছন্দ করবে না। কারণ সে ফর্সা মেয়ে চায়। এটা কি বর্ণবাদ না? আপনি কেনো ওই মেয়েকে পছন্দ করবেন না। সে কালো বলে? তাহলে কেন আপনি এখন রেসিজম নিয়ে সোচ্চার হচ্ছে? ঠিক তেমনি একটা মেয়েও একটা কালো বেটে মোটা ছেলে পছন্দ করবে না। এখানেও চলে আসে বর্ণ বৈষম্য। আবার সেই মেয়েরাই রেসিজম নিয়ে প্রশ্ন তোলে। কি অধিকার আছে আপনার। শুধু যে সাদা কালো নিয়ে বিভেদ তা নয়। উচু নিচু, হিন্দু মুসলমান নিয়েও চলে। আসেন সেটাও একটু আলোচনা করি এবং প্রমাণ সহ।

আমরা আদিবাসীদের ছোট করি। উপজাতি বলে। আমাদের দেশে হিন্দুরাও শিকার হন। তাদের আপনি চাড়াল বলবেন, মালায়ন বলবেন। আরো কতো কি বলবেন। এটা কি বৈষম্য করছেন না। ভাই চাড়াল মানে কি? চাড়াল কাদের বলা হয় জানেন? যারা নিচু কাজ করে তাদের বলা হয়। ওদের চাড়াল বলে তো আপনিই চাড়াল হয়ে যাচ্ছেন। তাহলে কেন ওদের চাড়াল বলবেন? কে দিয়েছে এই অধিকার? নাকি ওরা সংখ্যায় কম বলে যা ইচ্ছে তাই বলবেন? মারবেন, কাটবেন যা ইচ্ছে তাই করবেন?

ঠিক তেমনি আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশেও একই অবস্থা। ভারতে মুসলমানদের যা ইচ্ছে তাই করে। মারে কাটে। মায়ানমারেও একই। রোহিঙ্গা মুসলমানদের দেশান্তরী করতে বাধ্য করা হয়েছে। তাহলে কি দাড়ালো? বৈষম্য কোথায় হচ্ছে? আজ আমেরিকায় একজন হত্যা হয়েছে সবাই প্রতিবাদ করছেন। কোথায় মধ্যপ্রাচ্যে ওই আমেরিকা কর্তৃক হাজার হাজার মানুষ হত্যা হচ্ছে। তখন তো কেউ আওয়াজ তোলেন না। সারাবিশ্বে প্রতিদিন বর্ণ বৈষম্য হচ্ছে। তখন কেনো আওয়াজ তোলেন না? আজ কেনো তুলছেন? স্রোতের দিকে যাওয়া বন্ধ করেন। আগে আপনি নিজেকে ঠিক করেন। নিজে ঠিক হন। আপনার মধ্যে সবচেয়ে বড় বৈষম্য কাজ করে।

এবার আসি ভারতের কেরালা রাজ্যে হাতি হত্যা নিয়ে। আজ ফেসবুক জনতা ব্যস্ত পশু প্রেম নিয়ে। কেনো হাতিকে মারা হলো। এবং বিভিন্ন ধরনের ইমোশনাল কথা বানিয়ে সেটা প্রচার করা। সত্যি সেটা প্রশংসার দাবিদার। কিন্তু সবসময় কি এই পশু প্রেম কি থাকবে সবসময়? পাশের বিড়ালকে বা কুকুরকে বা অন্য প্রাণীকে কিছু বলবেন না তো? আমি জানি আপনারা বলবেন না। সব ধরনের পশুকে আপনারা ভালবাসবেন। কোনো পশুকে আপনারা মারবেন না বা হত্যা করবেন না।

কিন্তু আমি গ্যারান্টি দিচ্ছি আপনারা পারবেন না। কারণ পাশ দিয়ে হেটে চলা শুয়োরটাকে সবার আগেই পিটাবেন। আচ্ছা সেটা কি পশু না? কুকুর দেখলেই পিটান, বিড়াল দেখলে পিটিয়ে তাড়িয়ে দেন। তখন কোথায় থাকে পশু প্রেম? নাকি হাতি বড় তাই ভালবাসা বেশি আর ওরা ছোট তাই ওদের প্রতি ভালবাসা থাকবে না।

বন্ধ করেন ভাওতাবাজি। পশু মারতে আমরা ওস্তাদ। বনে গিয়ে পশু মারতে আমরা অভ্যস্ত। তাদের অভয়ারণ্য ধ্বংস করতে আমরা পটু। আমরা মোটেও তাদের ভালবাসি না। এটা লোক দেখানো ভালবাসা। বাস্তবে পশু প্রেম করেন।

আজ আর মাথায় আসছে না। তাই আর বলতে পারছি না। মানুষ মারা গেলে আমরা হিসাব রাখি কিন্তু পশু মরলে হিসেব রাখি না। আফসোস! ওইসব সোস্যাল পিপলদের জন্য। সবাই গায়ে নেবেন না।

 

লেখকঃঃ সজল আহমেদ,শিক্ষার্থী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, গোপালগঞ্জ। 

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..