শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ০৭:৫৫ পূর্বাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
বেনাপোলে ভারতীয় ফেনসিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার। ৭২ ঘণ্টার মধ্যে সকল অনিবন্ধিত ক্লিনিক বন্ধের নির্দেশ-স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় পানছড়িতে আওয়ামী লীগের পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত ছিনতাই ও মারধরের শিকার পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ঢাবি সিনেট নির্বাচনে বিজয়ী হলেন মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মাসুদুর রহমান চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালীতে প্রতিপক্ষের হামলায় প্রবাসী যুবক ও নারীসহ গুরতর আহত ২ প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তি করায় পাবিপ্রবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ সেশনের শিক্ষার্থীদের নবীন বরণ অনুষ্ঠিত ভাঙ্গায় শিক্ষক আজগর আলীর শোক সভা অনুষ্ঠিত ডিআইইউতে গবেষণা বিষয়ক সেমিনার বড়াইগ্রামে ট্রাক মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালকসহ দুইজন নিহত কাঁচাবাজারের সরকারি জমি দখল উপজেলা প্রশাসনের, বিপাকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা শার্শার বাগআঁচড়ায় সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগ। আহত-১ দুমকীতে গভীর রাতে হাত পা বেঁধে ফিল্মি স্টাইলে ডাকাতি! জিপিএ পদ্ধতি বাতিলের দাবি শিক্ষার্থীদের থট অফ রমাদানের ব্যতিক্রম আয়োজন ” বিবেক দংশন ” – নাজমুল হুদা শিথিল। শার্শার বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল গনি’র মুত্যু, দাফন সম্পন্ন। কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা দিলো কাকিনা স্টুডেন্টস ফোরাম চকরিয়ায় সড়ক দূর্ঘটনায় স্কুল শিক্ষিকার মৃত্যু নাটোরে চাঞ্চল্যকর কৃষক হত্যার খুনীদের ফাঁসির দাবি বড়াইগ্রাম-বনপাড়া পৃথক উপজেলা গঠণের লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা মেহেদীর জন্য সাহায্যের হাত বাড়ান দুমকীতে ছাত্রলীগের উদ্যোগে গরিব অসহায় মানুষের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ। ভেড়ামারায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ হস্তান্তর

ভালোবাসার আরেক নাম “মা”

তানজিলা আক্তার লিজা, ডিআইইউ প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৯ মে, ২০২১
  • ২০৩ ০০০ বার

নাম আমার মিতু। পেশায় একজন ডাক্তার। রোগীর রোগ নির্ধারণ করে তাকে সেবা প্রদান করা আমার কর্তব্য। যখন এই পেশায় নিয়োজিত হয়েছি ঠিক তখনি শপথ নিয়েছি এই সেবা প্রদান যুদ্ধে সবসময় জয়ী হবো যত বাধাই আসুক না কেনো।

মানবসেবা এই ডাক্তার পেশায় আসার পর আমার এক ছোট মেয়ে আছে তাসফিয়া তাকে সময় দেওয়া আমার আর হয়ে উঠে না। অন্যান্য মায়েদের মতো সবসময় তাকে নিয়ে তার বিদ্যালয়ে যাওয়া হয় না। তার গানের ক্লাসেও না। তাকে নিয়ে বাগানে লুকোচুরি খেলাও হয় না।

তাসফিয়া : মামনি, তুমি বড্ড পচাঁ। আমাকে ভালোই বাসো না। তোমার সাথে আড়ি। আমি চলে যাবো নানু বাড়ি।

ওর নানু বাড়ি বলতে শুনা মাত্রই মনে পরে গেলো আমার শৈশবের কথা। আমার “মা” ছিলেন একজন নার্স।
রোগীদের ঔষধ খাওয়া থেকে শুরু করে তাদের শীঘ্রই সেরে উঠার পিছনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা এই পেশায়(নার্স) যারা জড়িত তাদের।।
তাসফিয়া এখন আমাকে নিয়ে যা অভিযোগ করে। আমি তো এর থেকেও বেশি অভিযোগ তুলে ধরতাম শৈশবে আমার মার কাছে।

মিতু: মা তুমি কি আমার মা নও। ভালো কি বাসো না। কেনো তুমি আমার সাথে খেলো না। কেনো আমাকে খাইয়ে দেও না। তুমি সবসময় চলে যাও তোমার হাসপাতালে। এই রকম নানান অভিযোগ ফোনে কল করে বলতাম।

আর আমার “মা” শুনতো আর হাসতো।
আর বলতো,
মা: মেয়ে আমার শুনো তুমি তো এখনো ছোট। যখন বড় হবে আমার স্বপ্ন পূরণ করে ডাক্তার হবে। তখন তুমি এই সকল প্রশ্নের উত্তর পাবে।

আমি যখন নবম শ্রেনীতে পড়ি। আমার এক প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সেই অনুষ্ঠানে আমি নাচে অংশগ্রহণ করেছিলাম।ছোট থেকেই যদি কোনো প্রোগ্রাম হতো বাবাই নিয়ে দিয়ে আসতো। সেদিন ও বাবাই নিয়ে দিয়ে আসছিল। আমি প্রোগাম শেষে বাড়ি ফিরছি হাতে এক গিফ্ট ছিলো কারন আমি নাচে দ্বিতীয় হয়েছিলাম।

আমাদের বাড়ির পথে রাস্তা পার হবার সময় এক গাড়ি আমাকে অনেক জোড়ে ধাক্কা দেওয়াই ছিটকে পরে যায়। তখন আর আমার কিছু মনে নেই কি হয়েছিল আমার। শুধু এইটুকু মনে ছিলো শেষ মূহুর্তে আমি একটা কথা বলছিলাম “মা”।

যখন জ্ঞান আসে ফিরে দেখি আমার পাশের সিটে আমার মা আর আমি তার পাশের সিটে দুজনেরই এক চোখে বেন্ডেজ।
ডাক্তার এসে বললো, ” মামনি তোমার চোখের বেন্ডেজ এখন আমরা খুলে দিবো দেখোতো তুমি সব কি দেখছো দুচোখে “?

হ্যাঁ, আমি সব দেখছি।
আর আমার মার ব্যান্ডেজ খুলা মাত্রই আমার বুজতে বাকি রইলো না আমার মা আমাকে তার চোখ দিয়ে আবার নতুন ভাবে পৃথিবী দেখার সুযোগ করে দিয়েছে।

সেদিনের পর থেকে মা আর তার পেশায় যায় নি। আমাকে সময় দিয়েছে। আমার পরে আর তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ ছিলো না।
এখন নিজের মেয়ে যখন অভিযোগ তুলে তখন আমিও আমার মায়ের মতো হেসে বলি।
মামনি, সকল প্রশ্নের উত্তর পাবে বড় হলে।

মা, হক গৃহিণী, ডাক্তার, পাইলট, সাংবাদিক, উকিল যাই হক না কেনো সব মায়ের ভালোবাসা এক। শুধু সময় পার্থক্য, ভালোবাসার নয়। মা হচ্ছেন একজন নারী, যিনি গর্ভধারণ, সন্তানের জন্ম তথা সন্তানকে বড় করে তোলেন – তিনিই অভিভাবকের ভূমিকা পালনে সক্ষম ও মা হিসেবে সর্বত্র পরিচিত।
মা ছাড়া আমাদের জীবনটাও এক মুহুর্ত কল্পনা করা যায় না।

লেখকঃ তানজিলা আক্তার লিজা,
শিক্ষার্থী,ফার্মেসি বিভাগ, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। 

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..