শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৩৪ অপরাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
পাবলিক ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অব ঝিনাইগাতী’র সভাপতি নাজমুল, সম্পাদক জিম পাথেয় এর সভাপতি মামুন, সম্পাদক শারীফুল ইসলাম “পহেলা বৈশাখ ও সাম্প্রদায়িক বিতর্ক “ ঈশ্বরদীর নওদাপাড়ায় ৪র্থ বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ঈদের শুভেচ্ছা জানালো রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি সহস্রাধিক সাইটেশনের মাইলফলক স্পর্শ করলেন রবীন্দ্র উপাচার্য  ইদের পরেই বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটি হবে: শেখ ইনান প্রথম বর্ষে ভর্তিপরীক্ষা বিষয়ে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত মৌলবাদ জঙ্গিবাদ মূলোৎপাটন ও বুয়েটে ছাত্র রাজনীতির দাবিতে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের মানববন্ধন নোবিপ্রবির সঙ্গে যুক্তরাজ্যের নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর যবিপ্রবিতে পিএইচডি সেমিনার ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে সুশাসনের নিমিত্ত অংশীজনের সভা অনুষ্ঠিত  যশোরে সমরাস্ত্র প্রদর্শনীতে যবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা সবুজ বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে তরুণদের ‘মিশন গ্রিন বাংলাদেশ’ ডিআইইউ’র ১০ শিক্ষার্থী বহিষ্কারের প্রতিবাদে নোবিপ্রবিতে মানববন্ধন  স্বাধীনতা দিবসে ইবির খালেদা জিয়া হলে আলোচনা সভা ও দোয়া   রবির কুড়িগ্রাম জেলা শিক্ষার্থী কল্যাণ সমিতির দায়িত্বে জ্বীম-মনির নানা আনুষ্ঠানিকতায় যবিপ্রবিতে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপিত রবির বগুড়া জেলা শিক্ষার্থী কল্যাণ সমিতির দায়িত্বে সোয়েব-সমুদ্র রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপন  স্বাধীনতাকে নিয়ে ববি শিক্ষার্থীদের ভাবনা রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগার্ডকে স্থানীয় যুবকের মারধর  ববিতে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত চকরিয়ার মালুমঘাটে ইফতারের পূর্বে যুবককে তুলে নিয়ে ছুরিকাঘাতে হত্যা যবিপ্রবির তীর্থ কর্তৃক আয়োজিত ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

মোংলায় ড্রেজিংয়ের বালু দিয়ে ফসলী জমি ভরাটের অভিযোগে মানববন্ধন

মোহাম্মদ আলী,বাগেরহাট প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৫ এপ্রিল, ২০২১
  • ৩২৪ ০০০ বার
বালু দিয়ে ফসলী জমি ভরাটের অভিযোগে মানববন্ধন।

মোংলায় জোর পুর্বক জমি দখল করে বালু ভরাটের হাত থেকে অসহায় পরিবার গুলো রেহাই পেতে সংবাদ সম্মেলন।

সোমবার (৫ এপ্রিল) বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চিলা ইউনিয়নের সুন্দরতলা গ্রামে এ মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন করেছেন স্থানীয় গ্রামবাসীরা। সংবাদ সম্মেলনে প্রায় দেড় হাজার নারী-পুরুষ অংশগ্রহন করে। সংবাদ সম্মেলনে চিলা ইউনিয়নের ১১ নম্বর চিলা মৌজার এলাকাবাসীর পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মো. আলম গাজী। তিনি বলেন, বিগত কিছু দিন ধরে শুনতে পারছি, মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ নাকি মোংলা বন্দর পশুর চ্যানেলের ইনার বারে ড্রেজিং করার জন্য ড্রেজিং প্রকল্পের আওতায় ড্রেজিংকৃত মাটি পশুর নদীর তীরবর্তী জমিসমূহে ফেলার জন্য মালিকানা জমি অধিগ্রহণ করার পরিকল্পনা করছে। কিন্তু আমরা এলাকাবাসী ওই জমির মালিক হওয়া সত্ত্বেও আমাদেরকে না জানিয়ে বন্দর কর্তৃপক্ষের তাদের ইচ্ছা মাফিক কাজ শুরু করেছে। বসত ও কৃষি জমি অধিগ্রহণ করা ছাড়াই এবং ওই জমির মালিকদের অনুকূলে ক্ষতিপূরণ পরিশোধ না করে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ অন্যায়ভাবে জোর পূর্বক আমাদের মৎস্য ঘেরে পানি অপসারণ করে মাটি কেটে তাতে যেভাবে ডাইক নির্মাণ করে তাতে মাটি ভরাট করছে তা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যাবে না।

বন্দর কর্তৃপক্ষ যে প্রক্রিয়ায় এ কাজ করতে চাচ্ছে তা সম্পূর্ণ বেআইনি, অবৈধ ও আইনের পরিপন্থি।মোংলা উপজেলাধীন ৬ নম্বর চিলা ইউনিয়নের ১১ নম্বর চিলা মৌজার বিভিন্ন জমির মালিক আমরা। আমাদের বেঁচে থাকা, মা-বাবা, ছেলে-মেয়ে ও পরিবার পরিজন নিয়ে জীবন ধারনের একমাত্র সহায় সম্বল ও লাখ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেছি। পূর্ব পুরুষের রেখে যাওয়া জমিতে মৎস্য ও সামান্য কৃষি কাজ করে কোনো মতে জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। বর্তমানে চলতি মৌসুমে ওই জমিতে মৎস্য ও ধান চাষ চলছে। পরিবার পরিজনসহ কোনো মতে টিকে আছি। এছাড়াও মৎস্য চাষ মৌসুমের প্রায় অর্ধেক সময়ও পার হয়ে গেছে। এখন মাছ ধরার সময় বন্দর কর্তৃপক্ষ প্রচলিত নিয়ম ভঙ্গ করে অন্যায়ভাবে আমাদের করা মৎস্য ঘেরের মৌসুমে ঘেরের গেট বা ঘৈ কেটে দিয়ে ওই সব ঘেরের পানি অপসারণ করে এস্কেভেটর মেশিন দিয়ে মাটি কেটে বিশাল উঁচু ডাইক নির্মাণ করছে। আমরা তাদের এসব কাজে বাধা দেওয়া বা তাদের কাছে আমাদের জমির ক্ষতিপূরণ চাইতে গেলে তারা বলেন, জমির ক্ষতিপূরণের টাকা জেলা প্রশাসকের দপ্তরে জমা দিয়েছি বলে আমাদের তাড়িয়ে দেয়।এমনকি চীনারাসহ তাদের সাঙ্গপাঙ্গরা জমির মালিক কৃষক ও চিংড়ি চাষিদের নানাভাবে হুমকি-ধামকি দিচ্ছে। কিন্ত উপজেলা প্রশাসনের কাছে গেলে তারা কিছুই জানেন না বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

এমতাবস্থায় বন্দর কর্তৃপক্ষসহ জেলা, উপজেলাসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে আমরা এর আগে বহু আবেদন নিবেদন করেও কোনো ফল না পেয়ে বাধ্য হয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করতে বাধ্য হয়েছি। সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন, মোংলা বন্দর সচল করতে পশুর নদীর চ্যানেলের ইনাজ বারের ড্রেজিং করার ক্ষেত্রে আমাদের সার্বিক সহযোগিতায় কোনো ঘাটতি নেই। তবে আমাদের তফসিল বর্ণিত জমি জেলা প্রশাসক কর্তৃক অধিগ্রহণ করে, আমাদের জমি ও মৎস্য ঘেরের ক্ষতিপূরণ বুঝিয়ে দিলে, আমরা অন্যত্র জমি কিনে অন্তত পরিবার পরিজন নিয়ে মাথা গোজার ঠাঁই করতে পারবো।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..