শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:১৬ অপরাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
পাবলিক ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অব ঝিনাইগাতী’র সভাপতি নাজমুল, সম্পাদক জিম পাথেয় এর সভাপতি মামুন, সম্পাদক শারীফুল ইসলাম “পহেলা বৈশাখ ও সাম্প্রদায়িক বিতর্ক “ ঈশ্বরদীর নওদাপাড়ায় ৪র্থ বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ঈদের শুভেচ্ছা জানালো রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি সহস্রাধিক সাইটেশনের মাইলফলক স্পর্শ করলেন রবীন্দ্র উপাচার্য  ইদের পরেই বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটি হবে: শেখ ইনান প্রথম বর্ষে ভর্তিপরীক্ষা বিষয়ে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত মৌলবাদ জঙ্গিবাদ মূলোৎপাটন ও বুয়েটে ছাত্র রাজনীতির দাবিতে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের মানববন্ধন নোবিপ্রবির সঙ্গে যুক্তরাজ্যের নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর যবিপ্রবিতে পিএইচডি সেমিনার ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে সুশাসনের নিমিত্ত অংশীজনের সভা অনুষ্ঠিত  যশোরে সমরাস্ত্র প্রদর্শনীতে যবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা সবুজ বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে তরুণদের ‘মিশন গ্রিন বাংলাদেশ’ ডিআইইউ’র ১০ শিক্ষার্থী বহিষ্কারের প্রতিবাদে নোবিপ্রবিতে মানববন্ধন  স্বাধীনতা দিবসে ইবির খালেদা জিয়া হলে আলোচনা সভা ও দোয়া   রবির কুড়িগ্রাম জেলা শিক্ষার্থী কল্যাণ সমিতির দায়িত্বে জ্বীম-মনির নানা আনুষ্ঠানিকতায় যবিপ্রবিতে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপিত রবির বগুড়া জেলা শিক্ষার্থী কল্যাণ সমিতির দায়িত্বে সোয়েব-সমুদ্র রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপন  স্বাধীনতাকে নিয়ে ববি শিক্ষার্থীদের ভাবনা রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগার্ডকে স্থানীয় যুবকের মারধর  ববিতে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত চকরিয়ার মালুমঘাটে ইফতারের পূর্বে যুবককে তুলে নিয়ে ছুরিকাঘাতে হত্যা যবিপ্রবির তীর্থ কর্তৃক আয়োজিত ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

শিশুদের বিকাশে খেলাধুলা

মৌ আফরিন মিম
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১ আগস্ট, ২০২০
  • ৬৭১ ০০০ বার

শিশুদের বিকাশে খেলাধুলা’

ঐ যে সেই আগের দিন গুলো,
তখন নব্বই দশকের ছেলে-মেয়েগুলোর ছিলো রাজত্বকাল!!তাদের জীবনের লক্ষ শুধু এতোটুকুই ছিলো,”খাবোদাবো,ইস্কুল যাবো,খেলবো আর ঘুমাবো, এর মাঝে দু-এক ফোঁটা পড়াশোনা করলেও করা যেতে পারে।”
কোথায় গেলো সেই দিন গুলো?কোথায় তারা?
আজ আর তারা নেই তারা এখন অনেক বড় হয়ে গিয়েছে এবং সাথে নিয়ে এসেছে নতুন প্রজন্ম,নতুন জীবন!যেখানে শিশুদের বেঁচে থাকার লক্ষ বড় বড় ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল,মোটামোটা বই,পড়াশোনা, মোটা কাঁচের চশমা, ছোট্ট অবুঝ বয়সেই ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার হয়ে ওঠার ব্যাকুলতা এবং মাঝে মাঝে দু-এক ফোঁটা ভিডিওগেমস খেললেও খেলা যেতে পারে!!
আমেরিকায় করা এক রিসার্চে দেখা গিয়েছে যে, “জেলখানার কয়েদিদের চেয়েও বর্তমানে শিশুরা কম সময় খেলাধুলা করে কাটায়।”

আগের দিনের খেলাগুলো প্রকৃতির সাথে মিশে ছিলো।। যেমন -গোল্লাছুট, হাডুডু, গাদন, লুকোচুরি, কিতকিত,ইচিং-বিচিং, সাত গুটি এমন আরো বহু আছে। অর্থাৎ সবই প্রকৃতির সাথে মিলেমিশে খেলাধুলা করা!!
বর্তমানে স্কুল থেকে এসেই বাচ্চারা চেঁচিয়ে উঠে, “আম্মু আমার ভিডিওগেমস কোথায়?” এছাড়া এদের জন্য স্মার্টফোন এখন হাতের পানি,বিভিন্ন অনলাইন গেমসই এখন এদের অবসরের সঙ্গী, সেখানে প্রকৃতি কোথায় যেন হারিয়ে গিয়েছে।।
অথচ একজন শিশু যখন প্রকৃতির সাথে মিশে খেলতে শুরু করে তখন প্রকৃতি নিজে থেকে তাদের অনেক রকম শিক্ষা দিতে শুরু করে,অসংখ্য মানুষের সাথে মিশে সামাজিক হয়ে উঠতে সাহায্য করে, শিশুদের চিন্তাশক্তির বিকাশ ঘটায়,ভালো-খারাপ বুঝতে শিখায়, সহজেই সব জায়গাতে খাপখেয়ে উঠতে শিখায়। ফলে তারা মানসিক এবং শারীরিক ভাবে সুস্থতা বোধ করে এবং আনন্দ-উচ্ছাসে বড় হয়ে উঠতে পারে।।
ওসনাব্রুক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিশু শিক্ষাবিদ রেনাটে সিমার বলেন, ‘‘শিশুদের খেলার জন্য আমি সবসময়ই আরো অনেক বেশি জায়গা চাই৷ হ্যাঁ, শিশুকে এমনটা করতে দিন, কারণ শিশুরা এভাবেই খেলার মধ্য দিয়ে তাদের জীবনের ছোট ছোট চাহিদাগুলো মেটানোর প্রস্তুতি নেয়৷’’
অন্যদিকে ঘরে বসে ভিডিওগেমস খেলে তাদের মানসিক অবস্থার যেমন বিকৃতি ঘটে, তেমনি অতি ছোট বয়সে বিভিন্ন রকম অসুস্থতাই ভোগে।।বিশেষ করে এদের বেশিরভাগই চোখের সমস্যাতে ভোগে, যার ফলে অতি ছোট বয়সে মোটা কাঁচের চশ্মা তাদের বন্ধু হয়ে ওঠে।।
কানাডার ব্রোক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক মিরজানা বাজোভিকের নেতৃত্বে একটি গবেষক দল ১৩-১৪ বছর বয়সী শিশুদের ওপর গবেষণা চালিয়ে দেখেন,
সাধারণত ১৩-১৪ বছর বয়সে শিশুদের মধ্যে পরস্পরের প্রতি সহানুভূতি, আস্থা ও বিশ্বাসের উন্নয়ন ঘটে।’সহিংস গেমসের প্রতি অতিরিক্ত আসক্তি বাস্তব জগৎ থেকে শিশুদের বিচ্ছিন্ন করে তোলে, তাদের মধ্যে নৈতিকতা বোধ জাগ্রত করার প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করে তোলে,শিশুরা অন্যদের প্রতি কম সহানুভূতিশীল হয়_ যা শিশুকে পরিপূর্ণ সামাজিক মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে বাধাগ্রস্ত করে। খবর বিবিসি অনলাইন।(২০১৪ সমকাল)

আগের দিনে কাদামাটি ছিলো শখের জিনিস বানানোর উপাদান ।কাদামাটি দিয়ে পুতুল বা ছোটছোট খেলনা হাড়িপাতিল তৈরি করতো,নব্বই দশকের ছেলেমেয়েগুলোই।।
বর্তমানের অভিভাবকগন শিশুদের বাহিরে খেলতে দিতেই ইতস্ত বোধ করেন,সেখানে কাদামাটি নিয়ে খেলা?উরি বাবা!! পারলে সাধারন কারনে বাহিরে বের হলে পায়ে জুতা হাতে মোজা পরিয়ে বের হবেন। সেখানে যদি কোনো বাচ্চা মাটিকাদা মেখে ফেলে তবে তো তার একদিন তো বাবা-মার একদিন এমন অবস্থা।।
অথচ বৃষ্টির পানি মাটিতে পরার পর মাটি থেকে যে বিভিন্ন ধরনের পদার্থ নির্গত হয়, সেগুলো স্বাস্থের জন্য খুবই ভালো,এই পদার্থের নাম ‘জিওস্মিন’।এবং তার ফলে যে গন্ধ নির্গত হয় তাকে ‘সোঁদা’ গন্ধ বলে।।
Harvard Medical School এর Dr. Richard S. Blumberg নামের রিসার্চার ২০১২ সালে একটি গবেষণায় দেখিয়েছেন, “যারা ধুলা-বালিতে এবং রোগজীবাণুর সান্নিধ্য বেড়ে উঠে তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা (বিশেষ করে Colitis এবং Asthma) যারা পরিস্কার ও রোগজীবানুমুক্ত পরিবেশে বড় হয়েছে তাদের চেয়ে অনেক বেশি।”(সংগ্রহীত)
তবে কি বলা যেতে পারে,রাস্তার এক কোণে বেড়ে ওঠা শিশুরা অট্টলিকায় বেড়ে ওঠা শিশুদের থেকে বেশি সুস্থ ও স্বাভাবিক?
হ্যাঁ তাই,তারা সুস্থ!!

সুতরাং, আপনার শিশুকে মানসিক এবং শারীরিক ভাবে সুস্থ রাখতে শিশুকে পরিবেশ ও প্রকৃতির সাথে মিশতে দিন,তাদের মাটির সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলতে সাহায্য করুন।শহুরে এমন জায়গার অভাব বলতে আমি কখনোই বিশ্বাস করি না, কিছুদূর পর পর বিভিন্ন পার্ক,উদ্যান,মাঠ রয়েছে প্রতিদিন না হলেও শিশুকে সপ্তাহে ২ দিন মানুষ, পরিবেশ ও প্রকৃতির সাথে পরিচিত হতে দিন এবং সুস্থ ভাবে গড়ে উঠতে সাহায্য করুন।শিশুদের বিকশিত করতে খেলাধুলায় উৎসাহিত করুন।

লেখকঃ মৌ আফরিন (মিম),

অনার্স ২য় বর্ষ,

ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগ,

নিউ গভঃ ডিগ্রী কলেজ, রাজশাহী

নিউজটি শেয়ার করুন..

One response to “শিশুদের বিকাশে খেলাধুলা”

  1. Amit Ghosh says:

    অসংখ্য ধন্যবাদ লেখককে শিশুদের দিকটি বিবেচনা করে এমন একটি তথ্যবহুল লেখনীর জন্য।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..