শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৩৮ অপরাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
পাবলিক ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অব ঝিনাইগাতী’র সভাপতি নাজমুল, সম্পাদক জিম পাথেয় এর সভাপতি মামুন, সম্পাদক শারীফুল ইসলাম “পহেলা বৈশাখ ও সাম্প্রদায়িক বিতর্ক “ ঈশ্বরদীর নওদাপাড়ায় ৪র্থ বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ঈদের শুভেচ্ছা জানালো রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি সহস্রাধিক সাইটেশনের মাইলফলক স্পর্শ করলেন রবীন্দ্র উপাচার্য  ইদের পরেই বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটি হবে: শেখ ইনান প্রথম বর্ষে ভর্তিপরীক্ষা বিষয়ে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত মৌলবাদ জঙ্গিবাদ মূলোৎপাটন ও বুয়েটে ছাত্র রাজনীতির দাবিতে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের মানববন্ধন নোবিপ্রবির সঙ্গে যুক্তরাজ্যের নটিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর যবিপ্রবিতে পিএইচডি সেমিনার ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে সুশাসনের নিমিত্ত অংশীজনের সভা অনুষ্ঠিত  যশোরে সমরাস্ত্র প্রদর্শনীতে যবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা সবুজ বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে তরুণদের ‘মিশন গ্রিন বাংলাদেশ’ ডিআইইউ’র ১০ শিক্ষার্থী বহিষ্কারের প্রতিবাদে নোবিপ্রবিতে মানববন্ধন  স্বাধীনতা দিবসে ইবির খালেদা জিয়া হলে আলোচনা সভা ও দোয়া   রবির কুড়িগ্রাম জেলা শিক্ষার্থী কল্যাণ সমিতির দায়িত্বে জ্বীম-মনির নানা আনুষ্ঠানিকতায় যবিপ্রবিতে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপিত রবির বগুড়া জেলা শিক্ষার্থী কল্যাণ সমিতির দায়িত্বে সোয়েব-সমুদ্র রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপন  স্বাধীনতাকে নিয়ে ববি শিক্ষার্থীদের ভাবনা রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগার্ডকে স্থানীয় যুবকের মারধর  ববিতে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত চকরিয়ার মালুমঘাটে ইফতারের পূর্বে যুবককে তুলে নিয়ে ছুরিকাঘাতে হত্যা যবিপ্রবির তীর্থ কর্তৃক আয়োজিত ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

স্বপ্ন ফেরি করা নোবিপ্রবি’র নীল- সাদা বাস

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ৩৮০ ০০০ বার
নোয়াখালীর রাস্তায় নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নীল- সাদা বাসগুলো দেখে স্কুল-কলেজপড়ুয়া অনেক শিক্ষার্থীই মনে মনে ভাবেন—একদিন আমিও এই বাসের যাত্রী হব। আবার এই শহরের রাস্তাতেই কোনো অ্যালামনাই হয়তো যানজটে বসে ওই বাসের দিকে তাকিয়েই স্মৃতিকাতর হয়ে পড়েন। ভাবেন, আহা, কী সব দিন ছিল!

ক্যাম্পাসে যাওয়া-আসার এই যানবাহন নিয়ে আবেগ, রোমাঞ্চ শুধু নোয়াখালী নয়, এর বাইরের জেলা বা শহরগুলোয়ও আছে। একেকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের লাল, নীল, আকাশি, ধূসর কিংবা সবুজরঙা বাসগুলো অনেক শিক্ষার্থীর স্বপ্ন ফেরি করে বেড়ায়। যাঁরা এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়েন, তাঁদের অনেকের একটা বড় সময় কাটে এই বাসে বসে। তাই বাসযাত্রার সঙ্গে জড়িয়ে থাকে বহু স্মৃতি। ওই বাসের কোনো যাত্রীর সঙ্গে কথা বলে দেখুন, তাঁর ঝোলায় গল্পের শেষ নেই।

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মাহমুদা বিথী বলছিলেন নীল-সাদারঙা বাসগুলো তাঁকে কীভাবে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হতে অনুপ্রেরণা জোগাল। ‘আমার স্কুল লাইফ থেকেই খুব ইচ্ছা ছিল নোবিপ্রবি তে পড়ার। যেহেতু বাসা নোয়াখালিতেই ছিলো তাই যখন নীল সাদা বাস গুলো দেখতাম মনে হতো আমিও এই ভাবে ভাইয়া আপু দের মতো  ক্যাম্পাসে যাবো। তাই স্কুল -কলেজ দুটোতেই টার্গেট ছিল কীভাবে নোবিপ্রবি তে চান্স পাওয়া যায়। আর প্রত্যেক বার নোবিপ্রবির নীল সাদা বাস দেখলেই নিজের মধ্যে একটি তীব্র ইচ্ছা এবং অসম্ভব স্পৃহা  আসতো যেভাবেই হোক পরিশ্রম দ্বারা আমাকে বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেতেই হবে।  যখন স্কুলে যেতাম দেখতাম ভাইয়া আপুরা রাস্তার ধারে বাসের জন্য অপেক্ষা করছেন। বাসগুলোর দিকে তাকিয়ে শুধু প্রার্থনা করতাম, শিক্ষার্থীর পরিচয়ে এই বাসে চড়ার সৌভাগ্য যেন আমার হয়। সেই স্বপ্ন সত্যি হয়েছে।সৃষ্টিকর্তার ইচ্ছায় আমি এখন এই ক্যাম্পাসে অধ্যয়নরত।’

মাইজদী হাউজিং থেকে নিয়মিত ক্যাম্পাসের বাসে যাতায়াত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থী শামীমা খানম মিতু। তিনি মনে করেন, ক্যাম্পাসের বাসে যাতায়াত করাটা নারী শিক্ষার্থীদের জন্য একটু বেশি সুবিধাজনক। বললেন, ‘নিজের ক্যাম্পাসের বাসে যাতায়াত করলে একটা আলাদা গর্ব যেমন কাজ করে, তেমনি একজন নারী হিসেবে এই বাসে আমি অনেক বেশি নিরাপদ বোধ করি। সে জন্য কখনো কখনো একটু বেশি অপেক্ষা করতে হলে, কিংবা শিডিউল এদিক-ওদিক হয়ে গেলেও ক্যাম্পাসের বাসেই যাতায়াত করতে চেষ্টা করি।’

ক্যাম্পাসের বাসগুলোর প্রতি শিক্ষার্থীদের ভালোবাসা টের পাওয়া যায় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর পরিবহন চত্বরে গেলেও। বাসের সামনে দাঁড়িয়ে দল বেঁধে ছবি তোলার চিত্র দেখা যায় নিয়মিত। বিশেষত, প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের জন্য তো এটি রীতিমতো ‘অবশ্যকর্তব্য’। প্রেজেন্টেশনের দিনও ফরমাল ড্রেস আপে সবাইকে দেখা যায় বাসের সাথে ছবি তুলতে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কল্যাণে নিজেদের এই আনন্দ সবার সঙ্গে ভাগ করে নেন শিক্ষার্থীরা।

আবাসিক শিক্ষার্থীদের সাথে ক্যাম্পাস জীবনের যোগসূত্র তৈরির প্রথম মাধ্যম যেমন বিশ্ববিদ্যালয়ের হল, তেমনি অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের সাথে ক্যাম্পাসের প্রথম ভালোবাসা হয়ে থাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের লাল ও নীল- সাদা বাসগুলো।

বাসের নামগুলোও চমকপ্রদ। যেমন- রজনীগন্ধা, হাসনাহেনা, টিউলিপ, সূর্যমুখী, শাপলা, ডালিয়া, মালতী ইত্যাদি। যাত্রীরা প্রায় সমবয়সী হওয়ায় বাসের জন্য অপেক্ষার সময়টি যেমন আড্ডায় মুখর হয়, তেমনিভাবে কখনো কখনো চলন্ত বাসেই জমে ওঠে গানের আসর।

ক্যাম্পাসের বাসে দল বেঁধে যাতায়াত করতে করতে শিক্ষার্থীদের মধ্যে একটি আলাদা বন্ধনও তৈরি হয়েছে বলে মনে করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসরাত জাহান নামের এক শিক্ষার্থী। তিনি বলেন, ‘ক্যাম্পাসের বাসে নিয়মিত যাতায়াত করলে বাসকেন্দ্রিক একটা কমিউনিটি গড়ে ওঠে। অন্যান্য বিভাগের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একটা সখ্য তৈরি হয়। আমরা যাঁরা অনাবাসিক শিক্ষার্থী, তাঁদের জন্য এটি একটি বড় সুযোগ। দেখা যায়, দুজন দুই বিভাগের শিক্ষার্থী, অথচ বাসযাত্রার সুবাদেই তাঁরা হয়ে ওঠেন কাছের বন্ধু। এই বন্ধুত্ব ও বন্ধনই তো বিশ্ববিদ্যালয়জীবনের সবচেয়ে বড় সম্পদ।’

দিনশেষে এই নীল- সাদা বাসগুলো হয়তো বলে ওঠে, ‘আমি আড়ম্বরপূর্ণ কিছু নই, আমার এসি নেই, নেই ভালো আসনও, সবার জন্য নির্ধারিত জায়গাও নেই, অনেক সময় হয়তো দাঁড়িয়ে কিংবা ঝুলে যেতে হয়। তারপরও অনেকে স্বপ্ন বুনতে থাকে আমার কোলে বসে, আমার প্রতি তোমাদের যে দরদ তা অনুভব করি ক্যাম্পাসের বন্ধ দিনগুলোতে।’

প্রেরকঃ আব্দুল্লাহ আল মাহবুব শাফি,
শিক্ষার্থী, নোবিপ্রবি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..