বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৩:৩১ অপরাহ্ন
নোটিশ ::
বাংলাদেশ সারাবেলা ডটকমে আপনাদের স্বাগতম। সারাদেশের জেলা,উপজেলা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন - ০১৭৯৭-২৮১৪২৮ নাম্বারে
সংবাদ শিরোনাম ::
পাবনা ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার উদ্যোগে দাখিল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ কৃতি ছাত্রদের সম্বর্ধনা অনুষ্ঠিত পাবনায় পানিতে ডুবে ১২ বছরের কিশোরের মৃত্যু রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ফটোগ্রাফি সোসাইটির নতুন কমিটি গঠন  দুর্নীতি প্রতিরোধ বিষয়ক বিতর্ক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন কয়রাবাড়ী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়  পাবনায় প্রথমবারের মত আয়োজিত হতে যাচ্ছে ক্যাট শো প্রতিযোগিতা ঈশ্বরদীতে বুড়িমারী এক্সপ্রেস ট্রেন লাইনচ্যুত; তদন্ত কমিটি গঠন হায়দারপুরে এক রাতে ১৫ টি গরু চুরি জামিনে মুক্তি পেলেন সাবেক সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলাম রবীন্দ্র জয়ন্তীর কেন্দ্রীয় কর্মসূচিতে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশগ্রহণ রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ইনোভেশন প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত নোবিপ্রবি সায়েন্স ক্লাবের নেতৃত্বে দেওয়ান—শাওন ব্যাগ ভর্তি টাকা সহ সুজানগর উপজেলা নির্বাচনের চেয়ারম্যান প্রার্থী আটক কক্সবাজার জেলায় ১০ম বারের মতো শ্রেষ্ঠ ওয়ারেন্ট তামিলকারি অফিসার মহসিন, শ্রেষ্ঠ অস্ত্র উদ্ধারকারী সোলায়মান যবিপ্রবিতে দুই দিনব্যাপী শুরু হতে যাচ্ছে বৈশাখী মেলা ও লোকসংস্কৃতি উৎসব চকরিয়ার হারবাংয়ে হাতি মারার বৈদ্যুতিক ফাঁদে জড়িয়ে কৃষকের মৃত্যু শহীদ এম মনসুর আলী কলেজের প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল আর নেই আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাচন ২৯ মে, চেয়ারম্যান পদে লড়বেন ৩ জন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে দৈনিক সমকালে অপপ্রচারের বিরুদ্ধে  শিক্ষক সমিতির প্রতিবাদ বর্ণাঢ্য আয়োজনে হকৃবিতে প্রথম ‘বিশ্ব ভেটেরিনারি দিবস-২০২৪ উদযাপিত চকরিয়ায় জেলের ছদ্মবেশে অভিযান; ১২ লাখ ৫০ হাজার পিস ইয়াবা জব্দ আটঘরিয়ায় ৩ কৃষকের বাড়িতে অগ্নিকাণ্ডে ১৫ লক্ষাধিক টাকার মালামাল ভস্মীভূত বাউরেসের কৃষি সাংবাদিকতা পুরস্কার পেলেন আবুল বাশার মিরাজ গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা আয়োজনে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বয় সভা আটঘরিয়ার একাডেমিক সুপারভাইজারের বিদায় সংবর্ধনা চকরিয়ায় মহাসড়কে ব্যারিকেড দিয়ে গণ-ডাকাতি, গুলি বিনিময়, পুলিশসহ গুলিবিদ্ধ ২

১৫ই আগস্ট! বাঙালি জাতির ললাটে কালো টিকা একে দেওয়ার দিন

তুষার মাহমুদ
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৫ আগস্ট, ২০২০
  • ৬৭৫ ০০০ বার

১৫ই আগস্ট! বাঙালি জাতির ললাটে কালো টিকা একে দেওয়ার দিন।

 

মধুমতি নদীর অসংখ্য শাখা নদীর মধ্যে একটি হচ্ছে বাইগার।বাইগার নদীর তীর ঘেঁষে ছবির মত সাজানো সুন্দর একটি গ্রাম। নদীর দুপাশে অসংখ্য গাছ ও সবুজ সমারোহ। ভাটিয়ালি গানের সুর ভেসে আসে হালধরা মাঝির কন্ঠ থেকে।পাখির গান,নদীর কলকল ধ্বনি এক অবিশ্বাস্য মনোরম পরিবেশ গড়ে তোলে।বলছি এদেশের রাজনীতিতে অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি জেলা গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার কথা। যেখানে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, এদেশের মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক, স্বাধীন বাংলার মহান স্থপতি, পিতা শেখ লুৎফুর রহমান ও মাতা সায়রা খাতুনের প্রথম পুত্র বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কথা।যিনি ১৯২০ সালের ১৭ই মার্চ এদেশের মানুষের মুক্তির দূত হয়ে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।জন্মের পর নানা শেখ আবদুল মজিদ তাঁর নাম রাখেন শেখ মুজিবুর রহমান এবং তিনি(শেখ আবদুল মজিদ) তাঁর কন্যা তথা বঙ্গবন্ধুর মাতা সায়রা খাতুনকে তাঁর সমস্ত সম্পত্তি দান করে বলেছিলেন তোর ছেলের নাম এমন রেখেছি যে নাম একদিন জগৎ বিখ্যাত হবে।বঙ্গবন্ধুর শৈশব কেটেছিল টুঙ্গিপাড়ার নদীর পানিতে ঝাঁপ দিয়ে,মেঠোপথে ধুলোবালি মেখে,মাছরাঙা কীভাবে ডুব দিয়ে মাছ ধরে,দোয়েল পাখির সুমধুর সুর বঙ্গবন্ধুকে আকৃষ্ট করত।

গোপালগঞ্জ মিশনারী স্কুলে বঙ্গবন্ধু প্রাথমিক পড়াশোনা শুরু করেন এবং সেখানেই তাঁর কৈশোর বেলা কাটে।পিতা-মাতা আদর করে ডাকত খোকা নামে এবং গ্রামবাসী “মিয়া ভাই” নামে সম্বোধন করত।লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার প্রতিও তিনি বেশ আকৃষ্ট ছিলেন।বিশেষ করে তিনি খুব ফুটবল অনুরাগী ছিলেন।ছোটকাল থেকেই তিনি অত্যন্ত হৃদয়বান ছিলেন।তখনকার দিনে ছেলেদের পড়াশোনার তেমন সুযোগ না থাকায় অনেকে জায়গির থেকে পড়াশোনা করত।চার-পাঁচ মাইল পথ হেটে স্কুলে আসতে হতো।সকালে খেয়ে আসলে সারাদিন অভুক্ত অবস্থায় থাকত।আর বঙ্গবন্ধুর বাড়ি কাছে ছিল বলে তাদেরকে বাড়িতে নিয়ে এসে খাবার খাওয়াতেন।ছাতার অভাবে বৃষ্টিতে ভিজে কেউ স্কুলে আসলে তাকে তাঁর নিজের ছাতা দিয়ে দিতেন।ছোটবেলা থেকেই তিনি খুব অধিকার সচেতন ছিলেন।বাড়ি বাড়ি গিয়ে ধান,চাল,ডাল যোগাড় করে গরীব মেধাবী শিক্ষার্থীদের তিনি সহায়তা করতেন।
গোপালগঞ্জ স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাশ করে তিনি কলকাতার ইসলামিয়া কলেজে পড়তে যান।তখন তিনি বেকার,হোষ্টেলে থাকতেন।এই সময় তিনি শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সংস্পর্শে এসে হলওয়ে মনুমেন্ট আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন সক্রিয়ভাবে।আর তখন থেকে রাজনীতিতে তার সক্রিয় অংশগ্রহণ শুরু।
১৯৪৬ সালে তিনি বিএ পাশ করেন।পাকিস্তান-ভারত ভাগ হবার সময় দাঙ্গা হয়।তখন দাঙ্গা দমনে তিনি সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। অন্যায়কে তিনি কোন দিন প্রশ্রয় দেন নি।ন্যায় এবং সত্য প্রতিষ্ঠার জন্য জীবনের ঝুঁকি নিতে তিনি কখনো পিছপা হননি।পাকিস্তান সৃষ্টির পর তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে ভর্তি হন।নানা আন্দোলনের জন্য জীবনের অধিকটা সময় তিনি জেলে ব্যয় করে দিয়েছেন এদেশের মানুষের অধিকার প্রতিষ্টার জন্য।জীবনের আনন্দ,সুখ,আহ্লাদ থেকে হয়েছেন বঞ্চিত। দেশের মানুষের ভালবাসা তাকে সাহস দিয়েছে,অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী সর্বপ্রথম যখন আমাদের মাতৃভাষা বাংলার প্রতি আঘাত হানে অর্থাৎ মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ উর্দুকে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষার ঘোষণা দিলে তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানের প্রতিটি বাঙালি প্রতিবাদী হয়ে ওঠে।ছাত্র সমাজ আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণ করে।এই আন্দোলনে ১৯৪৯ সালে বঙ্গবন্ধু গ্রেফতার হোন।টানা ১৯৫২ সাল অবধি তিনি জেলে বন্দি থাকেন।তারপর থেকে দেশের প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে সামনে থেকে যিনি নেতৃত্ব দিয়েছেন এবং ঘাতকের নির্মম নির্যাতন ও বুলেটের সামনে পথহারা বাঙালিকে যিনি পথ দেখিয়েছেন সাহস দিয়েছেন এবং ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা সংগ্রামের জন্য যিনি অসহযোগ আনদোলনের ডাক দিয়েছিলেন,সারা বিশ্বে বাংলাদেশ নামক একটি স্বাধীন পতাকাবাহী রাষ্ট্র এনে দিয়েছেন তিনি হচ্ছেন হচ্ছেন পিতা মাতার আদরের খোকা,টুঙ্গিপাড়ার সকলের “মিয়া ভাই” খ্যাত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
স্বাধীনতা উত্তর যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশকে পুনর্গঠনে ব্রহ হয়ে যিনি নিঃস্বার্থভাবে এদেশের মানুষের ভাগ্যের চাকাকে ঘুরিয়ে দিতে এবং তাঁর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে তিনি কাজ করে চলেছিলেন।কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস যিনি সোনার বাংলা বিনির্মানের স্বপ্ন দেখেন সেই স্বপ্নসারথিকে দেশিয় কিছু নরপশু ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগষ্ট হত্যা করে এদেশের ইতিহাসে একটি ভয়াল কালো অধ্যায়ের সূচনা করে।এই দিনে বাঙালি জাতির ললাটে সারাজীবনের জন্য এক কালো টিকা লাগিয়ে দেয় নরপশুগুলো।নরঘাতকের বুলেটের আঘাত সেদিন স্বাধীন বাংলার মহান স্থপতিকে তাঁর বিশ্বস্ত সহচর মোস্তাক ও তার বাহিনী বুক ক্ষত বিক্ষত করে দেয়।এ যেন গোটা বাংলাদেশকেই হত্যা করার শামিল। সেদিন শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করা হয়নি হত্যা করা হয়েছিল বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনের ও তাঁর নিভৃত সাম্রাজ্যের একমাত্র সম্রাজ্ঞী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবকে,হত্যা করা হয়েছিল শেখ কামাল,শেখ জামাল ও ছোট্ট রাসেলও রেহাই পায়নি।রেহাই পায়নি কামাল-জামালের নব পরণীতা বধূ সুলতানা ও রোজী।যাদের হাতের মেহেদীর রং বুকের রক্তে মিশে একাকার হয়ে গেছে।খুনিরা এখানেই শেষ করেনি বঙ্গবন্ধুর একমাত্র ভাই শেখ নাসের,তরুণ নেতা বঙ্গবন্ধুর ভাগিনা শেখ মনি ও তার স্ত্রী আরজুকেও তারা খুন করেছে।ভাগ্যক্রমে বেঁচে যায় বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।আর সেই রাতেই নিভে যায় বাংলার মানুষের আশা ভরসার সবচেয়ে আলোকিত ও উজ্জ্বলতম বাতিটি। বাঙালি জাতির জীবনে নেমে আসে শোকের ঘন কালো ছায়া।এ যেন মৃত্যু নয় বরং নতুন করে বাঙালির হৃদয়ে বেঁচে থাকা।নানা শেখ আবদুল মজিদের কথা অনুযায়ী আজ সারা বিশ্বে “শেখ মুজিবুর রহমান “একটি নাম।বঙ্গবন্ধু থেকে বিশ্ববন্ধু!

লেখকঃ তুষার মাহমুদ,
শিক্ষার্থীঃজগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়। 

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..